বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Arrest: হরিহরপাড়া খুনের ঘটনা‌‌য় গ্রেপ্তার দুই

Rajat Bose | ২৫ নভেম্বর ২০২৩ ০৭ : ৫৩


আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মুর্শিদাবাদ জেলার হরিহরপাড়া থানার চোঁয়া–পাঠানপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মিনারুল শেখকে খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করল হরিহরপাড়া থানার পুলিশ। ধৃত ব্যক্তিদের নাম গাফ্ফার খান এবং সুজন খান। ধৃতদের দশ দিনের পুলিশ হেফাজতের আবেদন করে শনিবার বহরমপুর আদালতে তোলা হয়। প্রসঙ্গত,  প্রায় এক মাস আগে মিনারুল শেখের ছেলে চোঁয়া বি বি পাল বিদ্যানিকেতনের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র শাহিন শেখ তার এক সহপাঠীনিকে সঙ্গে নিয়ে বিয়ে করবে বলে গ্রাম থেকে পালায়।  এরপর মেয়ের বাড়ির লোকেরা শাহিনের পরিবারের কয়েকজনের বিরুদ্ধে হরিহরপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। কিছুদিন আগে শাহিনের বাবা মিনারুল শেখকে গোটা বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য পুণে থেকে ডেকে পাঠানো হয়। 
অভিযোগ মীমাংসা করার নামে বৃহস্পতিবার মেয়ের বাবা মুজিবর খান ওরফে পটল সহ আরও কয়েকজন মিনারুলকে তাদের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে মারধর করে। যার জেরে মিনারুলের মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ। মৃতের পরিবারের তরফ থেকে অভিযোগ করা হয়, শাহিনকেও মেয়ের পরিবারের লোকজন খুন করে তার দেহটি ‘‌গুম’‌ করে দিয়েছে। 
খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মৃতের পরিবারের তরফে সাত জনের বিরুদ্ধে হরিহরপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। এদিকে, ময়নাতদন্তের পর শুক্রবার রাতে মিনারুলের দেহ গ্রামে পৌঁছতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন গ্রামবাসীরা। হরিহরপাড়া থানার সামনে তারা বিক্ষোভ দেখান। এরপরই হরিহরপাড়া থানার পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে গাফ্ফার খান এবং সুজন খান নামে দু’‌জনকে গ্রেপ্তার করে। যদিও ধৃতদের নাম এফআইআরে ছিল না। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সুজন সম্পর্কে মুজিবরের ভাইপো এবং যে গাড়িতে করে মিনারুলের দেহ হরিহরপাড়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল গাফ্ফার সেই গাড়ির চালক। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, ঘটনার দিন সুজনই ফোন করে গাফ্ফারকে ডেকেছিল। এদিকে, মিনারুলের ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে পুলিশ তার দেহে মারধরের কোনও চিহ্ন পায়নি। পুলিশের অনুমান ওই ব্যক্তিকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে। 



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া