মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Madhyapradesh: মামা নাকি মহারাজা, মধ্যপ্রদেশের কুর্সিতে কে?

Pallabi Ghosh | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ০৪ : ৫২


বীরেন ভট্টাচার্য, দিল্লি: মধ্যপ্রদেশে ভোটে জিতে ক্ষমতা দখল করল বিজেপি। ২০১৮ সালে বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের জয়ের পর মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন কমলনাথ। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া তাঁর অনুগামীদের নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করায় কংগ্রেস সরকারের পতন এবং বিজেপির সরকার গঠন। তবে এবার আর কংগ্রেসকে সুযোগ দিলেন না মধ্যপ্রদেশের ভোটাররা। সরাসরি পদ্মফুলেই রায় দিল মধ্যপ্রদেশ। মহিলাদের জন্য প্রকল্পগুলির কারণেই গোবলয়ের এই গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যে ক্ষমতা দখল সম্ভব হয়েছে দাবি করেছে বিজেপি নেতৃত্ব।
শিবরাজ সিং চৌহ্বাণ তথা জাতীয় ও রাজ্য রাজনীতিতে মামা বলে পরিচিত দীর্ঘস্থায়ী মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ উঠেছিল। সেই কারণেই তাঁকে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীও করা হয়নি। যদিও বুড়ো হারে ভেল্কি দেখিয়ে দলকে নিরঙ্কুশ এনে দিলেন শিবই। নিজের আসন বুধনি কেন্দ্র থেকে লড়াই করেছিলেন শিবরাজ। বিজেপির শিবকে আটকাতে পর্দার হনুমান অভিনেতা বিক্রম মাস্তালকে ভোটের ময়দানে নামিয়েছিল কংগ্রেস। যদিও তাতে কোনও লাভ হয়নি। কংগ্রেসের নরম হিন্দুত্ত্বকে দুরমুস করে দিয়ে জয়ী বিজেপি। বুধনি কেন্দ্রে ১ লক্ষের বেশি ভোটের ব্যবধানে বিক্রম মাস্তালকে হারিয়ে জয় পেয়েছেন শিবরাজ সিং চৌহ্বাণ। বিক্রম মাস্তাল পেয়েছেন ৫৯,৯৭৭টি ভোট। সেখানে শিবরাজের প্রাপ্ত ভোট ১,৬৪,৯৫১টি ভোট। শিবরাজের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, কুশাসনের অভিযোগ তুলে প্রচার করেছিল কংগ্রেস। যদিও তাতে কোনও লাভ হয়নি। এদিন জয়ের পরেই এক্স হ্যান্ডেলে শিবরাজ বলেছেন, "মধ্যপ্রদেশে কোনও প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা নেই। বরং এই রাজ্যের হাওয়া সরকারের দিকেই। আমি রাজ্যবাসীকে ধন্যবাদ জানাই এবং আমার প্রতিশ্রুতি, আমাদের দলের দেওয়া গ্যারান্টি আমরা পূরণ করবই।" সে রাজ্যে প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা কিছুটা ছিলই। যদিও তাকে সেভাবে কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েছে কংগ্রেস। ভোপাল, চম্বল, গোয়ালিয়র অঞ্চলগুলিতে বিজেপির পরিস্থিতি খুব একটা ভাল ছিল না। তারসঙ্গে যোগ হয়েছিল দলীয় কোন্দল। তবে পরবর্তী সময়ে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের হস্তক্ষেপে বিষয়টি কিছুটা হলেও সামাল দেয় গেরুয়া শিবির। বিজেপি নেতৃত্বের বক্তব্য, মহিলাদের জন্য চালু করা লাডলি বেহনা প্রকল্পেই মধ্যপ্রদেশে পদ্ম ফুটেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির মতই মহিলাদের প্রতিমাসে ভাতা দেওয়ার যে প্রকল্প, তারই সুফল পেয়েছেন শিবরাজ সিং চৌহ্বাণ।
দলের নিরঙ্কুশ জয়ের পরেই প্রশ্ন উঠেছে, মধ্যপ্রদেশের কুর্সিতে কে? মামা এবং মহারাজার বিরুদ্ধে মোদি-শাহ-নাড্ডা কাকে বেছে নেবেন, তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। দলের জয়ে বিপুল অবদান থাকার পরেও, মুখ্যমন্ত্রী হতে না পারার ক্ষোভ থেকেই হাত ছেড়েছিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। তবে মধ্যপ্রদেশের কিস্যা কুর্সি কা-র সমাধান করবেন মোদি-শাহ-নাড্ডা। এবারের মধ্যপ্রদেশে কুর্সির দাবিদার রয়েছেন অনেক নেতাই। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ সিং প্যাটেল, নরেন্দ্র সিং তোমর, কৈলাশ বিজয়বর্গীর মতো কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীরা রয়েছেন কুর্সির দৌড়ে। তবে লাডলি বেহনা প্রকল্পে ভর করে ক্ষমতায় আসা মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পদে পাল্লা ভারী শিবের দিকেই। ইতিমধ্যেই লাখপতি বেহনা, কন্যা বিবাহ নামেও প্রকল্প চালু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।



বিশেষ খবর

নানান খবর

রজ্যের ভোট

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া