উদয় বসু: ‌ধীরে ধীরে তৃণমূলের দখলে আসতে চলেছে গাড়ুলিযা পুরসভার বোর্ড। কাউন্সিলর চন্দ্রভান সিং আর দীপা সিং তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর থেকে মুখ থুবড়ে পড়ে বিজেপি। এই পুরসভার ২১টি ওয়ার্ড। দীপা এবং চন্দ্রভান তৃণমূলে আসার পর তৃণমূলের এখন ১২টি আসন, বিজেপি–র ৮টি এবং ফরওয়ার্ড ব্লকের ১টি আসন রয়েছে। ১৬ আগস্ট পুরপ্রধান সুনীল সিংয়ের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয় তৃণমূলের পক্ষ থেকে। যদিও বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেছিলেন, ‘‌যতজনই যাক না কেন বোর্ড হবে বিজেপি–রই। তৃণমূল পারবে না।’‌ আর এ কথা বলার ৫ দিনের মাথায় গাড়ুলিয়া পুরসভার উপ–‌পুরপ্রধান সুব্রত মুখার্জি শনিবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিলেন। এদিন হালিশহর মঙ্গলদীপ লজে তৃণমূল নেতা সুবোধ অধিকারী এবং পার্থ ভৌমিকের হাত থেকে তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন তিনি।
সুব্রত মুখার্জি জানান, তিনি দীর্ঘ বছর ধরে তৃণমূলের সংগঠনের দায়িত্ব পালন করে এসেছেন। তার পর পুরপ্রধান সুনীল সিংয়ের কথায় তিনি বিজেপি–তে যোগ দেন। কিন্তু যাঁরা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি–তে গিয়েছিলেন, তাঁরা সেখানে উপযুক্ত সম্মান পাননি। যাঁরা এখনও বিজেপি–তে রয়েছেন তাঁদেরও তৃণমূলে ফেরার আহ্বান জানান তিনি। সুব্রত মুখার্জি ফের তৃণমূলে ফিরে আসায় ব্যারাকপুরের বিজেপি–র ঘাঁটিতে বড় ধরনের ফাটল দেখা দিল। ইতিমধ্যে হালিশহর, কাঁচরাপাড়ার কাউন্সিলরদের বেশিরভাগ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি–তে চলে গিয়েছিলেন। কিছুদিন পর বিজেপি–তে মানাতে না পেরে তাঁরা তৃণমূলে ফিরে আসেন। পুরসভাগুলি পুনর্দখল করে তৃণমূল। ঠিক একই অবস্থা গাড়ুলিয়া পুরসভার।‌ ছবি: ভবতোষ চক্রবর্তী

জনপ্রিয়

Back To Top