‌দীপেন গুপ্ত, পুরুলিয়া: পুরুলিয়ার নিস্তারিণী কলেজের ক্যান্টিন থেকে ‘কন্যাশ্রী’ আবেদনপত্র ছাপিয়ে ২০ টাকার বিনিময়ে বিক্রির অভিযোগ উঠল। বেশ কয়েক দিন ধরেই এই কারবার চলছে বলে কলেজ পড়ুয়ারা অভিযোগ করেছেন। মঙ্গলবার ক্যান্টিনে গিয়ে তা পরিষ্কার হয়ে উঠল ভুক্তভোগী ছাত্রীর কথায়। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক প্রথম বর্ষের কয়েকজন ছাত্রীর কথায় ‘নোটিস বোর্ডে পরিষ্কার বলা হয়েছে, ক্যান্টিন থেকে ফর্ম নিয়ে তা পূরণ করে জমা দিতে হবে। ক্যান্টিনে গিয়ে ২০ টাকার বিনিময়ে ওই ফর্মটি সংগ্রহ করি।’ কলেজ কর্তৃপক্ষ টাকার কথা নোটিসে উল্লেখ না করায় বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন ছাত্রীরা। এক প্রকার নিরুপায় হয়েই ছাত্রীরা ‘কন্যাশ্রী’ প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার আশায় ২০ টাকা দিয়ে ফর্ম সংগ্রহ করছেন কলেজের ক্যান্টিন থেকে।
এদিন দেখা গিয়েছে ক্যান্টিনের দায়িত্ব কর্মচারীর ওপর ছেড়ে দিব্যি জেরক্স করে ওই ফর্ম কুড়ি টাকার বিনিময়ে মালিক দেদার বিক্রি করছে কন্যাশ্রীর ফর্ম। কলেজের প্রায় ৪০০০ ছাত্রী রয়েছেন। অধিকাংশই ‘কন্যাশ্রী’ প্রকল্পের আওতাভুক্ত। কাজেই ফর্ম বিক্রি করে কলেজের ভিতরেই নতুন ‘‌কারবার’‌ শুরু করেছেন ক্যান্টিন মালিক, এমনটাই অভিযোগ অভিভাবকদের। কলেজের ভিতরে অনুমোদন ছাড়াই কীভাবে এই অনৈতিক কারবার চলছে বুঝে উঠতে পারছেন না অভিভাবকরা। বিষয়টি সম্পর্কে অন্ধকারে রয়েছেন খোদ কলেজের অধ্যক্ষা ইন্দ্রাণী দেব। এদিন বিষয়টি জানতে পেরেই তিনি কলেজের ‘কন্যাশ্রী ডিলিং অ্যাসিস্টেন্ট’কে ডেকে পাঠিয়ে বিস্তারিত জানতে চান। অধ্যক্ষা বলেন, ‘এই ভাবে ফর্ম ছাপিয়ে টাকা নেওয়ার বিষয়টি আমার একবারেই অজানা ছিল। আমি এই বিষয়টি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছি।’

জনপ্রিয়

Back To Top