নিরুপম সাহা, ‌হাবড়া: শতবর্ষে পা দিল কলকাতার কামারডাঙা সাধারণ দুর্গোৎসব সমিতি। আর সেই ক্লাবের দুর্গাপুজোর জন্য ১১০ কেজির রুপো দিয়ে প্রতিমা গড়ছেন উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়ার শিল্পী ইন্দ্রজিৎ পোদ্দার। হাতে আর মাত্র কয়েকদিন। তাই হাবড়ার বাণীপুরে শিল্পীর নিজস্ব প্রতিষ্ঠানে এখন জোর কদমে চলছে প্রতিমা নির্মাণের কাজ। তঁার এই কাজে হাত মিলিয়েছেন বেশ কয়েকজন সহ–শিল্পী। নিরাপত্তার জন্য সেখানে সশস্ত্র পুলিশ কর্মীও নিয়োগ করা হয়েছে।
এর আগেও নানা ফল, কয়েন, পাট ইত্যাদির মতো নানা উপকরণ দিয়ে প্রতিমা গড়ে নজির গড়েছেন ইন্দ্রজিৎ। প্রশংসাও কুড়িয়েছেন তিনি। সেই সুবাদে শুধু পশ্চিমবঙ্গই নয়, ভিনরাজ্য থেকেও নিয়মিত প্রতিমা গড়ার বরাত পান। এবারে কলকাতার কামারডাঙার জন্য রুপোর দুর্গা তৈরি করছেন। প্রতিমার আদল শান্তিরূপিনী মৃন্ময়ী হলেও তাতে আধুনিকতার ছোঁয়া থাকছে। যেমন মাথায় ঘোমটা থাকলেও দুর্গার পরনে থাকবে ঘাগরা। সবই রুপোর পাতের ওপর শিল্পীদের নিপুণ দক্ষতায় ফুটে উঠছে। এখানে অসুরকে বিনাশ করে শান্তির বার্তা নিয়ে দুর্গা নিজেই দঁাড়িয়ে আছেন অসুরের শরীরের ওপর। অস্ত্রের বদলে কয়েকটি হাতে রয়েছে জ্বলন্ত প্রদীপ। অন্য হাতে তিনি অভয় দান করবেন। অশুভ শক্তি বিনাশে এমনই মাতৃরূপ ফুটে উঠবে হাবড়ার শিল্পী ইন্দ্রজিতের শিল্পকর্মে।
প্রতিমার পাশাপাশি কলকাতার ওই ক্লাবের পুজো মণ্ডপ তৈরির দায়িত্বও নিয়েছেন ইন্দ্রজিৎ। প্রতিমার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে অপরূপ বাংলা মাকে তুলে ধরা হবে মণ্ডপ সজ্জায়। মণ্ডপে ঘুরতে ঘুরতে দর্শকেরা হারিয়ে যাবেন সম্পূর্ণ অন্য এক জগতে। তঁাদের সামনে ধরা দেবে রূপসী বাংলা, সম্প্রীতির বাংলা। যা দেখে মানুষ মুগ্ধ হবেনই। এমনই বিশ্বাস শিল্পীর। প্রতিমা এবং মণ্ডপের এই সাজসজ্জাকে মাথায় রেখে আলোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এই পুজোর এবারের থিম সঙ বাউল এবং ঝুমুর। পুজোর উদ্বোধনে থাকবে তঁাদের অনুষ্ঠান। সম্পূর্ণ ভাবনা ইন্দ্রজিতের মস্তিষ্কপ্রসূত।

জনপ্রিয়

Back To Top