আজকালের প্রতিবেদন
রাজ্যে নতুন করে আরও দু’‌জনের শরীরে নোভেল করোনা ভাইরাস পজিটিভ পাওয়া গেছে। তবে দমদমের বাসিন্দা মৃত প্রৌঢ়ের সহকর্মীর রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯। তাঁর মধ্যে একজন দমদমের বাসিন্দা ৫৭ বছরের ওই প্রৌঢ়ের সোমবার মৃত্যু হয়। নতুন করে যে দু’‌জনের কোভিড–১৯ পজিটিভ এসেছে তাঁদের একজন লন্ডন ফেরত এক মহিলা। তিনি নিউআলিপুরের বাসিন্দা। অন্য এক আক্রান্ত যিনি মিশর থেকে এসেছেন। তাঁদের বেলেঘাটা আইডি–তে চিকিৎসা চলছে। 
এনআরএসে আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন দমদমের প্রৌঢ়ের অফিসের সহকর্মী। রবিবার রাতে প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে তাঁকে এনআরএসে ভর্তি করা হয়।  তাঁর নমুণা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। যেহেতু তিনি আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাই তাঁকে নিয়ে চিন্তায় ছিলেন চিকিৎসকরা। মাঝেমধ্যে তাঁকে অক্সিজেন সাপোর্ট দেওয়ার প্রয়োজন পড়ছে। এনআরএসের আইসোলেশনে আর একজন জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে ভর্তি রয়েছেন। তাঁরও নমুণা পাঠানো হয়েছে। এনআরএসের সুপার ডাঃ সৌরভ চ্যাটার্জি বলেন, ‘‌করোনায় মৃত ব্যক্তির সহকর্মীর অবস্থা স্থিতিশীল। কোনও গুজব যাতে না ছড়ায় সেটা নিয়েই এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে আবেদন জানাই।’‌ ‌মঙ্গলবার মধ্যরাতে সবাই আশ্বস্ত হয় রিপোর্ট দেখে। রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।
অন্যদিকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ১০ টা স্পেশ্যাল আইসোলেশন শয্যার মধ্যে ৮ টি পজিটিভ কেসের চিকিৎসা চলছে। ২২ টি জেনারেল আইসোলেশন শয্যা রয়েছে। এদিন বেলেঘাটা আইডি–তে পরিদর্শনে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। কর্তৃপক্ষের কাছে শয্যা বাড়ানোর বিষয়ে কথাবার্তা বলেন। কর্তৃপক্ষ মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানান, আইডি–তে সন্দেহজনক রোগীদের চিকিৎসার বদলে শুধু আক্রান্তদের চিকিৎসা করতে পারলে তাহলে কিছুটা বেড বাড়ানো যাবে। এদিনও আইডি–তে বহু দূর–দূরান্ত থেকে রোগীদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। করোনা পরীক্ষা করানোর জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন। আইডি–র উপাধ্যক্ষ ডাঃ আশিস মান্না বলেন,‘‌সন্দেহজনক রোগী ১১ জন ভর্তি আছেন।  সাতজনের এদিন ছুটি হয়ে গেছে। বাকিদের ছুটি হয়ে গেলে আইসোলেশন ওয়ার্ডটাকে শুধু করোনা পজিটিভ আক্রান্তদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে চাই বলে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছি। বলেছি আমাদের আইসোলেশন স্থানান্তর করে শুধু পজিটিভ কেসগুলো রাখলে ভাল হয়।’‌ তিনটে ভেন্টিলেটর এসে গেছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top