আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও করেও ভারতের নারী সুরক্ষা এখনও তলানিতে। এখন ভারতের বহু গ্রাম এমনকি অনেক শহরেও বাল্যবিবাহের মতো ঘৃণ্যতম অপরাধ চলে প্রশানকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে। তেমনই একটি ঘটনা প্রায় ঘটেই যাচ্ছিল রাজস্থানের টংক জেলায়। শেষ পর্যন্ত তাকে বাঁচিয়ে দিলেন সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। 
টংকের বাসিন্দা এই বালিকার মা অনেকদিন আগেই গত হয়েছেন। তার বাবা মায়ের মৃত্যুর পর থেকেই মেয়ের বিয়ে নিয়ে উঠেপড়ে লেগেছেন। কিন্তু মেয়ে যে এখনও বালিকা বাবা সে কথা শুনতে চাননি। পরিস্থিতি হাতের বাইরে বেরিয়ে যাচ্ছে দেখে ওই টুকু মেয়ে গ্রাম থেকে ছুটে এসেছে মুখ্যমন্ত্রীর দরবারে। অশোক গেহলটের বাড়িতে আয়োজিত ‘‌গেহলট জন শুনানি’‌–তে উপস্থিত থেকে সে শুনিয়েছে তার পরিস্থিতির কথা। সঙ্গ দিয়েছেন তার কাকা। সেখানেই চোখের জলে মেয়েটি জানিয়েছে, বাবা তাকে জোর করে বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু সে বিয়ে করতে চায় না। পড়তে চায়। তারপরেই দ্রুত সরকারকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন অশোক গেহলট। স্থানীয় জেলাশাসক এবং পুলিশ কর্তাকে মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তর থেকে চিঠি পাঠিয়ে বলা হয়েছে মেয়েটির সমস্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে। মুখ্যমন্ত্রীর শিক্ষা প্রকল্পে যাতে ওই বালিকা পড়াশোনা করতে পারে, তারও উদ্যোগ সরকার নেবে বলে জানিয়েছেন গেহলট। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top