আজকাল ওয়েবডেস্ক: মনুষ্যত্ব বেঁচে আছে। করোনার এই লড়াইয়ে এরকম উজ্জ্বল এক উদাহরণ কামালগাজির জাহির হোসেন মণ্ডল। রোগীর সংখ্যা যখন মুহুর্মুহু বাড়ছে অক্সিজেন সিলিন্ডার থেকে শুরু বেডের যখন আকাল দেখা দিচ্ছে ঠিক তখনই সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ালেন কামালগাজির এই যুবক। অক্সিজেন লাগবে, হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে অথচ শয্যা নেই। সেই সময়টুকু যাতে সামাল দেওয়া যায় এবার তারই ব্যবস্থা করলেন তিনি। 

তিনি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে কর্মরত। বাড়ির নিচে ৮০ স্কোয়্যার ফুট একটি জায়গায় চালু করেছেন একটি চিকিৎসা কেন্দ্র। অবাক করার বিষয় এই যে, নিজের প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা তুলে এই কাজ করছেন তিনি। পাশাপাশি টেলিমেডিসিন পরিষেবাও চালু করেছেন জাহির। তাঁকে সাহায্য করতে পাশে দাঁড়িয়েছেন কয়েকজন চিকিৎসকও। 

জাহির জানাচ্ছেন, মানুষ যাতে প্রাথমিক চিকিৎসা পেতে পারে এবং হাসপাতালের পৌঁছানো পর্যন্ত কোনও রোগীর যাতে কোনও দুর্ঘটনা না ঘটে তাই এই ব্যবস্থা। ওই ছোট্ট চিকিৎসাকেন্দ্রে বিভিন্ন ওষুধপত্র, অক্সিমিটার, নেবুলাইজার মেশিন, পোর্টেবেল অক্সিজেন, অক্সিজেন সিলিন্ডার সহ বিভিন্ন ব্যবস্থা রয়েছে। তিনি বছর কয়েক ধরেই স্বাস্থ্য সম্বন্ধে সচেতনতা সৃষ্টি করেছেন এলাকায়। এর আগেও সাধ্যের মধ্যে স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দিয়েছেন এলাকাবাসীর কাছে। টেলিমেডিসিন দিচ্ছেন চিকিৎসক অরিন্দম বিশ্বাস, আরিফুর রহমান, মনোয়ার হোসেন, সোহেল আখতার।

জনপ্রিয়

Back To Top