অলোকপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়: • বনলতা সেনের ধাঁচে টালিগঞ্জ পাড়ার অনেকেরই রাইমা সেনের কাছে প্রশ্ন আছে—এতদিন কোথায় ছিলেন?‌
•• ওমা, কোথাও ছিলাম না!‌ এখানেই ছিলাম। তবে হ্যাঁ, ২০১৯-‌এ মুম্বইতে বেশি কাজ করেছি, ওখানেই বেশি থেকেছি। বাকি সময় কলকাতাতেই মা, বাবার সঙ্গে।
• আসলে এখানে কোনও সিনেমায় কাজ করার খবর নেই। অনেকদিন পরে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘‌দ্বিতীয় পুরুষ’‌-‌এ আবার রাইমার খোঁজ মিলল।
• (‌হাসতে হাসতে)‌ অনেকে আমার খোঁজ করছে বুঝি?‌ ইটস ইন্টারেস্টিং। তবে হ্যাঁ, চূর্ণী গাঙ্গুলির ‘‌তারিখ’-‌এর পর সৃজিতের ‘‌দ্বিতীয় পুরুষ’‌ করলাম। এর মাঝখানে মুম্বইতে বেশ কয়েকটা কাজ করেছি। অ্যামাজন প্রাইম-‌এ কাজ করেছি। বিনয় পাঠকের সঙ্গে করেছি ‘‌আলিয়া গায়েব হো গয়া’‌। টোনির (‌অনিরুদ্ধ রায়চৌধুরি)‌ পরিচালনায় ‘‌জি ফাইভ’‌-‌এ করেছি ‘‌পরছাই’‌। গত বছরটা মুম্বইতে অনেক ব্যস্ত ছিলাম।
• মুম্বইতে বড় পর্দায় কোনও কাজ হল?‌
•• কথাবার্তা চলছে। তবে, এর আগে আমি তেলুগু, মালায়ালম ছবি করলেও, গত বছর প্রথম তামিল ছবি করলাম বিজয় অ্যান্টনির সঙ্গে।
• আচ্ছা, গত বছর তো ‘‌সিতারা’‌ রিলিজ করেছিল।
•• আমি আসতে পারিনি। বেশ কয়েকবার রিলিজ ডেট পাল্টেছিল। ছবিটাও আমি দেখিনি। ছবিটা ভাল করে রিলিজও তো হয়নি। কেউ জানতেও পারেনি বোধহয় আমি ওই ছবিতে কাজ করেছি। আমার মনে হয় একটা ছবি যেমন যত্ন করে তৈরি করতে হয়, তেমন পরিকল্পনা করে রিলিজ করতে হয়। সেই জন্য আমি খুব ভাবনা-‌চিন্তা করে ছবি করতে চাই।
• সেজন্যেই বাংলায় রাইমার ছবির সংখ্যা কম?‌
•• আমি তো প্রচুর ছবি করি না। প্রচুর ছবি করতেও চাই না। বাজে ছবি আমি করব না। তাই, ভাল ছবির জন্যে অপেক্ষা করি। যেরকম ‘‌অফার’‌ পাব, তার থেকেই তো বাছতে হবে। তাই অপেক্ষা করা ছাড়া তো উপায় নেই।
• তার মানে, একদম শুরুতে যেমন তথাকথিত ফর্মুলা বা কমার্শিয়াল ছবি দিয়ে শুরু করেছিলেন, তেমন ছবি করার ইচ্ছে একেবারেই নেই?‌
•• আমার প্রথম বাংলা ছবি ছিল ‘‌ময়না’‌। আমি শুরুর দিকে দু’‌তিনটে কমার্শিয়াল ছবি করেছিলাম। তার মধ্যে ছিল ‘‌রাখে হরি মারে কে’‌। এরপর ‘‌নীল নির্জনে’‌ করেছি। কিন্তু উল্টোপাল্টা ছবি করতে ইচ্ছা করেনি। শুরুতে তো অত বুঝতে পারিনি। কিন্তু আমি সিনেমায় অভিনয় শুরু করেছিলাম হিন্দি ছবি দিয়ে। ‘‌গডমাদার’‌। সেখানে শাবানা আজমি ছিলেন।
• কিন্তু কমার্শিয়াল ছবি করতে কি অনিচ্ছা আছে?‌
•• অনিচ্ছা নেই। কিন্তু বোকা বোকা কমার্শিয়াল ছবি করতে চাই না। তবে, এখন কিন্তু সেরকম বোকা বোকা ছবি দর্শকরা দেখেন না। হিন্দিতে তো অনেক ভাল ভাল কমার্শিয়াল ছবি তৈরি হচ্ছে। বাংলাতেও মেইনস্ট্রিমের ছবির ধরন পাল্টাচ্ছে। মোট কথা, আমি ভাল ছবি করতে চাই।
• এই ভাল ছবির ‘‌টেস্ট’‌ কি শুরু হয়েছিল ঋতুপর্ণ ঘোষের সঙ্গে ‘‌চোখের বালি’‌ করে?‌
•• ঋতুপর্ণ ঘোষ আমাকে অভিনয়ের অনেক কিছু শিখিয়েছেন। তবে, ‘‌চোখের বালি’‌র আগে আমি বাবুদার (‌সন্দীপ রায়)‌ সঙ্গে করেছি ‘‌নিশিযাপন’‌। এখানে অভিনয় করে আমি অ্যাওয়ার্ডও পেয়েছি। তার পরেই ‘‌চোখের বালি’‌। আমার পঞ্চম ছবি ছিল ঋতুপর্ণর সঙ্গে। তারপর অনেকগুলো ছবি করেছি। ‘‌নৌকাডুবি’‌, ‘‌খেলা’‌, ‘‌সানগ্লাস’‌,‌ ‘‌চিত্রাঙ্গদা’‌। একসঙ্গে অভিনয় করেছি ‘‌মেমরিজ ইন মার্চ’‌, ‘‌আরেকটি প্রেমের গল্প’‌য়। ঋতুপর্ণ ঘোষ জানতেন কীভাবে অভিনয় করিয়ে নিতে হয়। সত্যিকথা বলতে কি, আমাকে অভিনেত্রী তৈরি করেছেন ঋতুপর্ণই। ঋতুপর্ণ ঘোষের সঙ্গে এতগুলো কাজ করলে বাজে ছবি, ভাল ছবির তফাৎটা  বুঝতে অসুবিধে হয় না।
• অনেক গুরুত্বপূর্ণ পরিচালকের সঙ্গেই তো কাজ করেছেন। ঋতুপর্ণর কাজের ধারার সঙ্গে কারও মিল পেযেছেন?‌
••রিনাদির (‌অপর্ণা সেন)‌ সঙ্গে ‘‌জাপানিজ ওয়াইফ’‌ করতে গিয়ে দেখেছি ওঁদের কাজের ধারা বা প্রসেসের মধ্যে অনেক মিল আছে। বাকিরা যে যার মতো। কৌশিক গাঙ্গুলি, কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়, চূর্ণীদি, অতনু ঘোষ বা সৃজিত মুখোপাধ্যায়, এঁরা নিজেদের স্টাইলেই কাজ করেন।
• সৃজিতের সঙ্গে তো এটা দ্বিতীয় ছবি?‌
•• হ্যাঁ, ‘‌বাইশে শ্রাবণ’‌-‌এ আমার আর পরমের ক্যারেক্টর দুটো তো এই ছবিতে এনেছে সৃজিত।
• পরিচালক হিসেবে সৃজিত মুখোপাধ্যায় কি খুব কড়া?‌
•• আগে খুব টেনশন করত। ‘‌বাইশে শ্রাবণ’‌-‌এ দেখেছি। এখন কিন্তু অনেকটা ক্যাজুয়াল। অভিনেতাদের ওপর অনেকটাই ছেড়ে দেয়। (‌হাসতে হাসতে)‌ বিয়ে করেছে তো। তাই অনেক নরম হয়ে গেছে বোধহয়।
• বিয়ে করলে লোকে নরম হয়ে যায়, এটা রাইমার অবজারভেশন?‌
•• (‌হাসতে হাসতে)‌ না, মানে, মনে হল। ৮ বছর বাদে সৃজিতের সঙ্গে কাজ করলাম তো। তফাৎটা নজরে পড়ল।
• রাইমার বিয়ে নিয়েও তো অনেকের জিজ্ঞাসা আছে। বিশেষত বোন রিয়ার বিয়ের পর লোকজন প্রশ্ন করছে না বিয়ে নিয়ে?‌
•• উহ, প্রচুর প্রশ্ন করছে। জ্বালাচ্ছে। আরে, আমি তো বিয়ে করতে চাই। আই লাভ টু ম্যারেজ, বাট.‌.‌.‌
• কিন্তু?‌ কোনও শর্ত আছে?‌
•• আছে তো। একটাই কন্ডিশন— ‘‌ম্যাড ইন লাভ’‌ হতে হবে। পাগলের মতো আমাকে ভালবাসতে হবে। আমি তো ইন্ডিপেনডেন্ট। আমি টাকা রোজগার করি। এসব নিয়ে তো চিন্তা নেই। কিন্তু পাগলের মতো ভালবাসতে হবে আমাকে।
• ওহ্‌। সেটা কেউ বাসছে না?‌ সত্যি?‌
•• বাসছে হয়ত। কিন্তু আমি তো তাকে পাগলের মতো ভালবাসতে পারছি না।
• তাহলে তো সমস্যা গুরুতর!‌
•• গুরুতর সমস্যা। তবে, বার্থ, ম্যারেজ আর ডেথ তো ডেস্টিনি। তাই নয়?‌ জন্ম, মৃত্যু, বিয়ে কারও হাতে নেই। আমারও নেই। তবে, বিয়ে করলেই যে খুব কিছু আলাদা ব্যাপার হবে, সেটা মনে হয় না।
• এমন মনে হচ্ছে কেন?
••‌ আরে, রিয়া তো বিয়ে করেছে। আমি ওকে জিজ্ঞেস করেছিলাম—বিয়ের পরে কি অন্যরকম লাগছে?‌ কিছু পাল্টেছে?‌ রিয়া তো বলল, নাথিং। একই আছে সবকিছু।
• আচ্ছা, সিনেমায় জুটি বললে রাইমার সঙ্গে কার নাম উঠে আসবে?‌ যেমন, সুচিত্রা সেন বললে চিরকাল উত্তমকুমারের নাম উচ্চারিত হয়।
•• সুচিত্রা-‌উত্তম চিরকালের জুটি। রোমান্টিক জুটি।  এরকম আর কখনও হবে না। আম্মাও (‌সুচিত্রা সেন)‌ হচ্ছে বাংলা সিনেমার ওয়ান অ্যান্ড ওনলি মহানায়িকা। তার ধারে কাছে কেউ নেই। তবে এখন তো জুটি বলে তেমন কিছু নেই। তবুও, যেহেতু বেশি ছবি আর বিজ্ঞাপন একসঙ্গে  করেছি, তাই আমার সঙ্গে পরমের জুটিটাই বেশি যায়।
• আপনার মা মুনমুন সেনের সঙ্গে কার জুটির কথা মনে পড়ে?‌
•• আই থিংক, মাম্মার সঙ্গে জুটি হিসেবে প্রথমেই তাপস পালের নামটাই আসবে।
• আচ্ছা, অভিনয় নিয়ে বা সিনেমা বাছাই করা নিয়ে মা-‌কি কোনও পরামর্শ দেন?‌
•• সিনেমা বাছাই করা নিয়ে আমার ওপর মায়ের ভরসা তৈরি হয়েছে মনে হয়। কিন্তু মা আমার সবচেয়ে বড় ক্রিটিক। ছবি দেখে বলবে, কেন এই সিন-‌এ এই জামাটা পরেছো, কেন এখানটায় এমন করেছো, এইসব। আর, ‘‌দ্বিতীয় পুরুষ’‌ রিলিজের আগে সবচেয়ে ভয় পাচ্ছি অন্য একটা ব্যাপারে।
• ভয়ের আবার কী হল?‌
•• আরে, এই ছবিতে আমি চুমু খেয়েছি পরমকে। এই সিনটা দেখে মা আমাকে মেরে ফেলবে। আমিও চাই না ফিল্মে কিসিং সিন করতে। কিন্তু যেহেতু ‘‌বাইশে শ্রাবণ’‌-‌এ এমন একটা সিন ছিল, তাই সৃজিত এবারেও ছাড়ল না। আমার একটুও ভাল লাগছে না। মা প্রিমিয়ারে আসবেই আসবে। আমি তো মায়ের থেকে অনেক দূরে বসব। জানি না, ওই সিনটা মা দেখার পর আমার কী দশা হবে!‌

রাইমা কথা বলতে বলতে ভয় পাওয়ার ভঙ্গি করেন। এমন একটা ‘‌সিরিয়াস’‌ ভয়ের আবহে রাইমার একা থাকাই ভাল!‌ রাইমার ভয় কাটানোর টোটকা তো জানা নেই!‌

ছবি:‌ বিপ্লব মৈত্র
    ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top