শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সম্পূর্ণ খবর

Heatwave

Heatwave: ইংল্যান্ডে দাবদাহ চলছেই, ভরসা ফ্যান আর ভেজা তোয়ালে

Heatwave: ইংল্যান্ডে দাবদাহ চলছেই, ভরসা ফ্যান আর ভেজা তোয়ালে

PB | ১৯ জুলাই ২০২২ ০৭ : ৩৪


তমালিকা বসুলন্ডন: লালমোহনবাবু থাকলে নির্ঘাৎ মিনি সিরিজ লিখতেন 'লন্ডনে লু-কাণ্ড', 'হ্যাম্পটনে হাঁসফাঁস' বা 'ডার্বিশায়ারে দাবদাহ'। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে সূর্য অস্ত না যাওয়ার মহিমা টের পাচ্ছেন সবাই।
ঘুম ভাঙা চোখে এই ফেসবুক পোস্টটি পড়ে লেখিকাকে বাহবা না দিয়ে পারলাম না। নজিরবিহীন গরমে গোটা ইংল্যান্ড পুড়ছে। উত্তর, পশ্চিম, পূর্ব, দক্ষিণ- ইংল্যান্ডের এক বিরাট অংশে লাল সতর্কতা চলছে। চড়তে থাকা পারদ সোমবার ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছুঁয়েছে ইংল্যান্ডের সাফোকে। দাবদাহ বজায় রয়েছে মঙ্গলবারও। লন্ডনে এদিন বেলা বারোটা নাগাদ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পেরিয়ে যায়। কয়েকটি অঞ্চলে তা ৪২ -এ পৌঁছবে বলে আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।
দিনের বেলা পোড়া গরমের পর ইংল্যান্ডবাসীর রাতেও স্বস্তি নেই। সোমবার সারারাত সর্বনিম্ন পারদ ছিল ২৫ ডিগ্রি। রেকর্ড ভাঙা উষ্ণরাতে বহু লন্ডনবাসীই ঘুমকে বিদায় জানিয়েছেন।  আসলে এদেশে বাড়িগুলি ঠান্ডা প্রতিহত করার মত করে বানানো হয়েছে। যে কারণে শীতকালে বাইরে থেকে ঘরে ঢুকলে স্বস্তি পাওয়া যায়। কনকনে ভাবটা থাকে না। সেই দেশে এরকম বাড়িগুলিতে গরমের দিনে কাটানো দুষ্কর। পাখা বলতে বাজার চলতি স্ট্যান্ড ফ্যান বা টেবিল ফ্যান। খুব কম সংখ্যক বাড়িতেই এসি রয়েছে। দিনের বেলা জানলায় ঝোলানো হচ্ছে ভেজা তোয়ালে। রাতের বেলা বিছানার চাদর, বালিশ আগুন হয়ে যাচ্ছে। আমার অফিসের সহকর্মীদের পরামর্শ, চাদর, বালিশের কভার জিপলক ব্যাগে ঢুকিয়ে ফ্রিজে রেখে দাও! এক অবস্থা পরিবহন ক্ষেত্রে। লন্ডন ও ইংল্যান্ডের প্রাণ টিউব (মেট্রো) ও রেলে হিটার রয়েছে, কিন্তু এসি খুব কম রেকে রয়েছে। লাল সতর্কতা জারি হতেই টিউব ও রেল কর্তৃপক্ষ অনাবশ্যক যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। পরিবহন সচিব গ্রান্ট সন্যাপ্স জানিয়েছেন, 'গরমের সঙ্গে লড়াই করার মতো পরিকাঠামো নেই আমাদের। বহু টিউব রুটে চলছে না বা দেরিতে চলছে।সুতরাং সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু খুব দরকার থাকলেই যানবাহন ব্যবহার করুন।'  এবারের তীব্র গরমে বিভিন্ন রেলের লাইন বেঁকে গিয়েছে। রেললাইনের সুরক্ষার জন্য একাধিক রুটের ট্রেনের গতি কমিয়ে দেয়া হয়েছে। টিউব কর্তারা জানিয়েছেন, গত সোমবারের তুলনায় যাত্রীসংখ্যা প্রায় ১৮% কম ছিল এই সোমবারে। কম লোক দেখা গিয়েছে বাস ও অন্যান্য যানেও। লন্ডনের গ্রিনিচে বন্ধ করা হয়েছে কেবল কার বা রোপওয়ে। কিন্তু এসব কিছুকে ছাপিয়ে গিয়েছে লুটন বিমানবন্দরের রানওয়ে গলে যাওয়া। সোমবার লুটন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এখানে একটাই মাত্র রানওয়ে, আর সেটা জায়গায় জায়গায় গলে গিয়েছে। তাই বিমান চলাচল এবং গোটা বিমানবন্দর বন্ধ রাখা হয়েছে।
বন্ধ রয়েছে ব্রিটেনের সর্ববৃহৎ সামরিক এয়ারবেস ব্রিজ নটোন। রয়্যাল এয়ার ফোর্স জানিয়েছে রানওয়ে গলে যাওয়ার জন্য কোনও সামরিক বিমান ওঠানামা করছে না। এককথায়, বসে গিয়েছে বা 'গ্রাউন্ডেড' ব্রিটিশ বায়ুসেনা।  দেশের বিভিন্ন জায়গায় স্কুল বন্ধ রয়েছে সোম ও মঙ্গলবার। লন্ডনে স্কুল বন্ধ না হলেও বেশ কিছু স্কুলের সময়সীমা কমানো হয়েছে। স্কুল ইউনিফর্মের বদলে হালকা শর্টস ও টিশার্ট বা স্পোর্টস ইউনিফর্ম পরতে বলা হয়েছে।
তবে পোশাকের এই শিথিলতা পায়নি রাণীর প্রাসাদের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা বাকিংহামের রয়্যাল গার্ড বা রাজরক্ষীরা। ৪০ ডিগ্রি গরমেও তাদের পরতে হয়েছে ঐতিহ্যবাহী লাল টিউনিক কোট ও ভালুকের চামড়ার টুপি। রয়্যাল গার্ডদের এই ১৮ ইঞ্চির টুপির ওজন প্রায় তিন কেজি এবং সেটা পরে এই তীব্র দাবদাহের মধ্যে ২ ঘণ্টা করে এক একজন রক্ষীকে দাঁড়াতে হয়। ২ ঘণ্টা দাঁড়ানোর পর ৪ ঘণ্টা বিশ্রাম। এই 'অমানবিক' ধারার বিরুদ্ধে ইন্টারনেটে ক্ষোভ উগরেছে জনগণ এবং রক্ষীদের পোশাকে বদল আনার জন্য সরব হয়েছেন কিবোর্ড বিপ্লবীরা। তাঁদের যুক্তি, জুনে রাণীর প্লাটিনাম জুবিলি অনুষ্ঠানে ভ্যাপসা গরমে এরকম পোশাকের জন্য কয়েকজন রক্ষী অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলেন। রাজ পরিবারের নজরে কি এগুলো পড়ে না?  গোটা ইংল্যান্ডে জরুরি পরিষেবাকে তৈরি থাকতে বলা হয়েছে। অতিরিক্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বিদ্যুৎ সংস্থাগুলিকে আর্জি জানিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। নদীতে স্নান করতে নিষেধ করেছে স্বাস্থ্য দপ্তর। তবে গায়ের জ্বালা মেটানোর লক্ষ্যে মঙ্গলবার 'আইসল্যান্ড' সুপারমার্কেটে ৬০ হাজার ব্যাগ বরফের কিউব বিক্রি হয়েছে। 



বিশেষ খবর

নানান খবর

Advertise with us

নানান খবর

সোশ্যাল মিডিয়া