একেবারে কিশোর বয়সেই রবীন্দ্রনাথ বিলেত গিয়েছিলেন। ফলে পাশ্চাত্ত্য সঙ্গীতের সঙ্গে ভাল মতই পরিচয় গড়ে ওঠে। নিজেই লিখছেন, ‘‌য়ুরোপীয় সংগীতের মর্মস্থানে আমি প্রবেশ করিতে পারিয়াছি এ কথা বলা আমাকে সাজে না। কিন্তু বাহির হইতে যতটুকু আমার অধিকার হইয়াছিল তাহাতে য়ুরোপের গান আমার হৃদয়কে এক দিক দিয়া খুবই আকর্ষণ করিত।’ কবি‌ এই অধীত জ্ঞান নিয়ে পরীক্ষা–‌নিরীক্ষা শুরু করেন ‘‌বাল্মীকি প্রতিভা’‌ রচনার সময়। জানান, ‘‌দেশী ও বিলাতি সুরের চর্চার মধ্যে ‌বাল্মীকি প্রতিভার জন্ম হইল।.‌.‌.‌ গুটি তিনেক গান বিলাতি সুর হইতে লওয়া।.‌.‌.‌ বিলাতি সুরের মধ্যে দুটিকে ডাকাতদের মত্ততার গানে লাগানো হইয়াছে এবং একটি আইরিশ সুর বনদেবীর বিলাপ গানে বসাইয়াছি।’ সম্প্রতি বিশিষ্ট রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী প্রসাদ সেন স্থাপিত সংস্থা সোহিনী ‘‌পাশ্চাত্য ধ্রুপদী সঙ্গীত ও রবীন্দ্রনাথের গান’‌ নিয়ে এক কর্মশালার আয়োজন করে। সেটির পরিচালনা ও প্রশিক্ষণে ছিলেন রবীন্দ্রসঙ্গীতশিল্পী অনিরুদ্ধ সিংহ। যাদবপুরের নিরঞ্জন সদনে। অনিরুদ্ধর তথ্যবহুল অডিও–‌ভিসুয়াল উপস্থাপনা অংশগ্রহণকারীদের তারিফ কুড়োয়।

জনপ্রিয়

Back To Top