আজকালের প্রতিবেদন: বিষণ্ণ বিসর্জনের বর্ণিল শোভাযাত্রার অপেক্ষায় এখন প্রহর গুনছে কলকাতা। মঞ্চ প্রস্তুত। আলোয় ভাসছে রেড রোড। কুশীলব, অর্থাৎ যে–সব পুজো যোগ দেবে বিষাদ–বিজয়ার এই কার্নিভালে, তৈরি তারা। কোমর বেঁধে প্রস্তুতি সারা পুলিশ–প্রশাসনেরও। আজ সপার্ষদ পুরো চত্বরটি পরিদর্শন করে গেলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। প্রস্তুতি ঘুরে দেখে গেলেন কলকাতা পুরসভার আধিকারিকরাও। 
 শুক্রবার বিকেল ৪টেয় কার্নিভাল শুরু। মোটামুটি প্রস্তুত রেড রোড। যদিও আবহাওয়া নিয়ে সামান্য হলেও উদ্বেগ রয়েই যাচ্ছে। বৃষ্টি এসে কার্নিভালে বাদ সাধবে কিনা তা নিয়ে একটু হলেও চিন্তায় আয়োজক থেকে পুজোকর্তারা। এবারের বিসর্জনের এই শোভাযাত্রায় কলকাতা–‌সহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে মোট ৮০টি পুজো অংশ নিচ্ছে। বৃহস্পতিবার থেকেই জেলা ও মফস্‌সলের পুজোগুলি প্রতিমা নিয়ে রেড রোড উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে দিয়েছে। প্রতিমাগুলিকে ইডেন গার্ডেনের কাছে রাস্তার ধারে রাখা হয়েছে। কয়েকটি পুজো কমিটির প্রতিমা নিয়ে শুক্রবার ভোরের মধ্যে পৌঁছে যাওয়ার পরিকল্পনা। সরকারি নির্দেশে দুপুর ২টোর মধ্যে অংশগ্রহণকারী পুজোগুলোকে রেড রোডে পৌঁছে যেতে বলা হয়েছে। 
 এবারে কার্নিভালের থিম ‘‌রাঙা মাটির বাংলা’‌। বাংলার লোকশিল্পগুলিকে তুলে ধরা হবে কার্নিভালে। রাজভবন সূত্রে খবর, এবছর শোভাযাত্রা দেখতে থাকছেন সস্ত্রীক রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়।  মূল মঞ্চ, যেখানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বসবেন, সেখানে থাকছে বাঁকুড়ার টেরাকোটার কাজ। মঞ্চের আশপাশেও থাকবে টেরাকোটার কারুকার্য। দেশ–‌বিদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথিরা আসছেন। মুখ্যমন্ত্রীর মঞ্চের বিপরীত দিকেই লাল মাটি দিয়ে করা হয়েছে আরেকটি মঞ্চ। যেখানে বসবেন বিদেশি ও বিশেষ অতিথিরা। উপদূতাবাসের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বিসর্জনের শোভাযাত্রা যাতে সবাই দেখতে পায়, তার জন্য তৈরি করা হয়েছে এলইডি ওয়াল। আমন্ত্রিতের সংখ্যা প্রায় ৩ হাজার। ফোর্ট উইলিয়ামের গেট থেকে পুলিশ মেমোরিয়াল পর্যন্ত রাস্তার দু’‌পাশে সাধারণ মানুষের বসে দেখার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।   
কার্নিভাল উপলক্ষে বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে রেড রোড বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কলকাতা ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার কার্নিভাল শুরুর আগে বন্ধ করে দেওয়া হবে খিদিরপুর রোড, হসপিটাল রোড, লাভার্স লেন এবং কুইন্স ওয়ে। বেশ কিছু রাস্তায় যান নিয়ন্ত্রণ করা হবে। ‌মুড়ে ফেলা হয়েছে নিরাপত্তার বলয়ে। বসানো হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার। পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতে আইএনসিএ–র আধিকারিকরা পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। দফায় দফায় কথা বলে নিরাপত্তার বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন তাঁরা। রেড রোডে এদিন সন্ধ্যায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখেন জয়েন্ট সিপি (‌ক্রাইম)‌ মুরলীধর শর্মা,  ডিসি সাউথ মিরাজ খালিদ। 
শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারী পুজোগুলির মধ্যে রয়েছে বিশ্ব বাংলা শারদ সম্মান, কলকাতাশ্রী, এশিয়ান পেইন্টস–‌সহ বিভিন্ন পুরস্কার বিজয়ী। এদিন কার্নিভালের শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নিয়ে চূড়ান্ত ব্যস্ততা দেখা যায় পুজো উদ্যোক্তাদের মধ্যে। কোথাও চলছে ফাইনাল রিহার্সাল। সিঁদুর খেলা–‌সহ বিসর্জনের সমস্ত আচার সেরে নিচ্ছেন আজই। বৃহস্পতিবারই ছিল প্রতিমা নিরঞ্জনের শেষ দিন। সেই মতো এদিনও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিমা বিসর্জন ও সিঁদুর খেলা হয়।‌‌‌‌

 

পুজো কার্নিভালের প্রস্তুতি শেষ মুহূর্তে। রেড রোডে, বৃহস্পতিবার। ছবি: তপন মুখার্জি

জনপ্রিয়

Back To Top