আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মাদক কাণ্ডে অভিযুক্ত বিজেপি যুব মোর্চার নেত্রী পামেলা গোস্বামী গ্রেফতার হওয়ার পরেই নাম জড়ায় বিজেপি নেতা রাকেশ সিংয়ের। বিজেপির যুব মোর্চার নেত্রী অভিযোগ করেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ঘনিষ্ঠ রাকেশ সিং তাঁকে ফাঁসিয়েছেন। এরপরেই লালবাজারের তরফে মঙ্গলবার বিকেল ৪টের মধ্যে তাঁকে হাজিরা দেওয়ার নোটিস পাঠানো হয়। সেই নোটিসকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন রাকেশ সিং। রাকেশের সেই আবেদন খারিজ করেছে হাইকোর্ট। আজই রাকেশকে হাজিরা দিতে হবে বলে জানিয়েছে হাইকোর্ট। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রাকেশ সিংয়ের আলিপুরের বাড়ির বাইরে জড়ো হয়েছে কলকাতা পুলিশের বিশালবাহিনী। রাকেশ সিং হাইকোর্টে আবেদন করে জানান, সোমবার রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ লালবাজারের তরফে নোটিস পান তিনি। সেই নোটিসকে চ্যালেঞ্জ করেই স্থগিতাদেশের আবেদন আদালতের দ্বারস্থ হন তিনি। স্থগিতাদেশের সেই আবেদন খারিজ করেন বিচারপতি সব্যসাচী চট্টাচার্য। তিনি জানিয়ে দেন, তদন্তের স্বার্থে পুলিশ যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে বেআইনি কিছু নেই। তাই এই বিষয়ে আদালত হস্তক্ষেপ করবে না। অর্থাৎ আজকেই লালবাজারের পুলিশ কর্তাদের মুখোমুখি হতে হবে রাকেশকে। এদিকে চারটের আগেই আলিপুরে রাকেশ সিংয়ের বাড়ির বাইরে গিয়ে হাজির হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী। নিউ আলিপুর থানার সঙ্গে ওয়াটগঞ্জ ও সাউথপোল থানার আধিকারিকরাও রয়েছেন। পুলিশের বক্তব্য, নিউ আলিপুর থানায় রাকেশের বিরুদ্ধে হওয়া একটি মাদক মামলায় তদন্তের প্রয়োজনে তাঁর বাড়িতে তল্লাশি করতে চান তাঁরা। কিন্তু পুলিশকে বাধা দেন রাকেশের বাড়ির বাইরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিআইএসএফ আধিকারিকরা। সঙ্গে ছিলেন রাকেশ ছেলে সাহেব সিং। অন্যদিকে পুলিশের অভিযোগ তদন্তে বাধা দেওয়া হচ্ছে। তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগে মামলা করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে পুলিশ। উল্লেখ্য, এদিন সকালেই রাকেশ ইমেল করে লালবাজারকে জানিয়েছেন, আজ তিনি হাজিরা দিতে পারছেন না। কারণ মঙ্গলবার ও বুধবার দিল্লিতে জরুরি কাজ রয়েছে তাঁর। বৃহস্পতিবারের পরে কোনও দিন তাঁকে ডাকা হলে তাঁর যেতে কোনও অসুবিধা নেই বলেই জানিয়েছেন রাকেশ।

জনপ্রিয়

Back To Top