আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কেরলের নির্যাতিতা সন্ন্যাসিনীকে যৌনকর্মী বললেন নির্দল বিধায়ক পি সি জর্জ। শনিবার পুঞ্জর কেন্দ্রের বিধায়ক জর্জ বলেন, ‘‌ কোনও সন্দেহ নেই ওই সন্ন্যাসিনী যৌনকর্মী। এর আগে ১২ বার ধর্ষিতা হলেও ১৩বারের বার কেন ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই সন্ন্যাসিনী। এর অর্থ ওই সন্ন্যাসিনী পবিত্র নন। তাঁর বোনদেরও এব্যাপারে জেরা করা উচিত।’‌ 
পি সি জর্জের এই মন্তব্যের পরই কেরল সহ সারা দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। রবিবার সকালে জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন রেখা শর্মা পি সি জর্জের বিরুদ্ধে তোপ দেগে বললেন, ‘‌মহিলাদের সাহায্য করার বদলে বিধায়কদের এধরনের মন্তব্য লজ্জাজনক। কেরলের ডিজিপিকে চিঠি লিখে জর্জের বিরুদ্ধে কড়া শাস্তির দাবি জানাবে জাতীয় মহিলা কমিশন।

কারণ এধরনের মানসিকতার মানুষদের বিধায়ক বা জনপ্রতিনিধি পদে থাকার কোনও অধিকার নেই।’‌ রেখা আরও বলেছেন, তিনি ওই সন্ন্যাসিনীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন। নির্যাতিতা এখনও খুব আতঙ্কিত হয়ে আছেন। বিশপের বিরুদ্ধে অভিযোগ করায় তাঁকে একঘরে করে দিয়েছে চার্চ। মাসিক রেশ বা ভাতাও পাচ্ছেন না তিনি। অথচ অভিযুক্ত বিশপের বিরুদ্ধে পাঞ্জাব বা কেরল পুলিস কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় তিনি বিষয়টি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে চিঠি লিখে জানিয়েছেন।
শনিবারই প্রথমবার নির্যাতিতা সন্ন্যাসিনীর পাশে দাঁড়িয়ে তাঁর হস্টেলের অন্য সন্ন্যাসিনীরা এবং জয়েন্ট ক্রিশ্চান কাউন্সিলের সদস্যরা অভিযুক্ত বিশপের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া এবং নির্যাতিতার প্রতি সুবিচারের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছিল।

তারপরই ওই মন্তব্য করেন জর্জ। নির্যাতিতার পরিবার বিধায়কের মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে বলেছে রবিবার প্রথমবার সাংবাদিকদের সামনে এসে ঘটনার কথা খুলে বলতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ঘটনার পরই তিনি এতোটাই ভেঙে পড়েছেন যে নিজেকে ঘরবন্দি করে ফেলেছেন। রবিবারের সাংবাদিক সম্মেলনও আর করছেন না তিনি।
৪৬ বছরের ওই সন্ন্যাসিনী কয়েক মাস আগে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত জলন্ধরের বিশপ ফ্র‌্যাঙ্কো মুল্লাকল তাঁকে ১৩ বার ধর্ষণ করেছিলেন। অভিযোগ পাওয়ার পরও পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ করে ওই সন্ন্যাসিনীর পরিবার এবং অন্য সন্ন্যাসিনীরা। তাঁদের অভিযোগ, ৭৪ দিন হয়ে গেলেও বিশপ মুল্লাকলের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিস। এর মধ্যে নির্যাতিতাকে বহুবার জেরা করলেও গত মাসে মাত্র একবারই জেরা করা হয়েছে অভিযুক্ত বিশপকে।

পুলিসের এব্যাপারে সাফাই, ওই মামলার তদন্তে আরও তথ্যপ্রমাণ না পেলে এগনো যাবে না।
অন্যদিকে, রবিবার সকাল ৯টা নাগাদ কেরলেই কোল্লাম জেলার পতনপুরমে কুয়োর ভিতর মিলল আরেক সন্ন্যাসিনীর দেহ। সুজান ম্যাথিউ নামে ৫৪ বছরের ওই প্রৌঢ়া সন্ন্যাসিনী পতনপুরমের সেইন্ট স্টিফেন্স স্কুলে গত ১২ বছর ধরে শিক্ষকতা করছিলেন। এদিন সকালে মাউন্ট ট্যাবোর কনভেন্টের কর্মীরা কুয়োর ধারে রক্তের দাগ দেখতে পেয়ে কুয়োর ভিতর উঁকি দিয়ে সুজানের দেহ ভাসতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিস গিয়ে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। কেন, কীভাবে এই মৃত্যু তা জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে। পুলিস জানিয়েছে, ট্যাবোর কনভেন্ট এবং সেইন্ট স্টিফেন্স স্কুল কোট্টায়ম জেলার মালাঙ্কারা সিরিয়ান অর্থোডক্স চার্চের অন্তর্গত। 

জনপ্রিয়

Back To Top