আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ প্রথমবার ‌মন্দার মুখ দেখল ভারতও। দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন সঙ্কুচিত হল ৭.‌৫%। বিভিন্ন ক্ষেত্রের উৎপাদনে মোট যুক্তমূল্য কমেছে ৭%। শুক্রবার রিপোর্ট দিয়ে জানাল জাতীয় পরিসংখ্যান দপ্তর। এপ্রিল–জুনের ত্রৈমাসিকে প্রায় ২৪% জিডিপি সঙ্কোচনের পর অর্থনীতি স্বাভাবিক নিয়মে খানিক ঘুরে দঁাড়ালেও মন্দা ঠেকানো গেল না। পরপর দু’‌টি ত্রৈমাসিকে মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন সঙ্কুচিত হলে অর্থনীতিতে মন্দা ধরে নেওয়া হয়। ১৯৯৬ সাল থেকে ত্রৈমাসিকের নিরিখে আর্থিক বৃদ্ধির হার মাপা শুরু হয় দেশে, তার নিরিখে এই প্রথম মন্দার কবলে ভারত। 
অতিমারী আবহে যে সঙ্কটের মুখে পড়েছিল ভারতের অর্থনীতি, তা থেকে অনেকটাই ঘুরে দাঁড়িয়েছে, সম্প্রতি জানিয়েছেন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানেও তা স্পষ্ট। উৎপাদন ক্ষেত্রে ০.‌৬% বৃদ্ধি হয়েছে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে। কৃষিক্ষেত্রে বৃদ্ধি ৩.‌৪%। যদিও ব্যক্তিগত খরচ ১১.‌৫% কমেছে এই সময়ে, যার অর্থ বাজারে এখনও চাহিদা ফেরেনি। এখনও বৃদ্ধির মুখ দেখেনি নির্মাণ এবং খনিশিল্প। বাণিজ্য এবং হোটেল শিল্প প্রায় ১৫% সঙ্কুচিত হয়েছে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে। অক্টোবরের শেষে রাজকোষ ঘাটতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯.‌৫৩ লক্ষ কোটি। যা বাজেট বরাদ্দের প্রায় ১২০%। 
অর্থ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রথম ত্রৈমাসিকের পর জিডিপি সঙ্কোচনের যা পূর্বাভাস মিলেছিল, তা চেয়ে কিছুটা হলেও স্বস্তিদায়ক এদিনের পরিসংখ্যান। বিভিন্ন ক্ষেত্রের সূচকে বৃদ্ধি পরিলক্ষিত হয়েছে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে, যা থেকে স্পষ্ট ধীরে ধীরে পুনরুজ্জীবিত হচ্ছে অর্থ ব্যবস্থা। 

জনপ্রিয়

Back To Top