আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পুজোর বাকি আর তিন সপ্তাহ। তবু করোনার চোখ রাঙানিতে সবই ঝিমিয়ে। এর মধ্যেই আজ থেকে দৈনন্দিন জীবনের একাধিক ক্ষেত্রে লাগু হচ্ছে একগুচ্ছ নতুন নিয়ম। মোটর ভেহিকেলস থেকে আয়কর, স্বাস্থ্যবিমা, ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডে আসছে নতুন নিয়ম। জেনে নিন।
১.‌ গাড়ির কাগজপত্রের কোনও ফিজিকাল ভেরিফিকেশন লাগবে না:‌ ড্রাইভিং লাইসেন্স বা রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট (‌আরসি)‌, ইনসিওরেন্স সার্টিফিকেট ভুলে বাড়িতেই ফেলে বেরিয়ে পড়লে তার জন্য আর ফেরত আসতে হবে না। দিতে হবে না জরিমানাও। সফট কপি থাকলেই নিশ্চিন্ত যাত্রা। এছাড়া গাড়ির যাবতীয় কাগজপত্র সহ ই–চালান সবই ইনফর্মেশন টেকনোলজি পোর্টালের মাধ্যমে ইস্যু–রিনিউয়াল করতে হবে। ডিজি–লকার বা এম–পরিবহণ এর মতো কেন্দ্রীয় সরকারের অনলাইন পোর্টালেই সব নথিপত্র রাখতে পারবেন গাড়ি মালিক ও চালকরা। বিনামূল্যে এইসব পোর্টালে নিজেদের মোবাইল নম্বর দিয়ে নাম রেজিস্ট্রি করতে হবে। 
২.‌ ফোন ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন:‌ গাড়ি চালানোর সময় একমাত্র রুট নেভিগেশনের জন্য ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু ফোনে কথা বলা বা গাড়ি চালানোর সময় হাতে ধরা কোনও কমিউনিকেশন ডিভাইস ব্যবহার করলে ট্রাফিক আইন অনুযায়ী জরিমানা দিতে হবে।
৩.‌ এলপিজি কানেকশন আর বিনামূল্যে নয়:‌ প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনার অন্তর্গত ফ্রি গ্যাস কানেকশন আর মিলবে না। ৩০ সেপ্টেম্বরই তা শেষ হয়ে গেল। আজ থেকে নতুন গ্যাস কানেকশন নিতে গেলে লাগবে টাকা। 
৪.‌ বিদেশে টাকা পাঠাতে হলে (‌ট্রান্সফার করতে গেলে)‌ লাগবে অতিরিক্ত ৫ শতাংশ কর:‌ বিদেশে ৭ লক্ষ টাকার বেশি পাঠাতে হলে ৫%‌ কর দিতে হবে যদি প্রেরক তাঁর ওই আয়ের উপর কোনও টিডিএস না দিয়ে থাকেন। বিদেশে টাকা পাঠানোর সময় ব্যাঙ্কই ওই কর কেটে নেবে। আপনি যদি বিদেশে এখানকার কোনও ব্যাঙ্কের ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে বিদেশি মুদ্রায় খরচ করেন, সেক্ষেত্রেও ব্যাঙ্ক ওই কর কাটবে। 
৫.‌ আজ থেকে মিষ্টির গায়ে লিখে রাখতে হবে এক্সপায়ারি ডেট, বেস্ট বিফোর সময়সীমা:‌ অক্টোবরের পয়লা দিন! সন্দেশ–রসগোল্লার পরীক্ষার দিন। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও মান নির্ণয় কর্তৃপক্ষের (ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অব ইন্ডিয়া বা এফএসএসএআই) এর ফরমান অনুযায়ী ১ অক্টোবর থেকে বিপণিতে বা প্যাকেটের গায়ে ওষুধের মতো মিষ্টির এক্সপায়ারি তারিখ বা ‘বেস্ট বিফোর’ সময়সীমা লিখতে হবে।

 
৬.‌ স্বাস্থবিমান নতুন নিয়ম কার্যকর:‌ হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা অথবা ডোমিসিলিয়ারি হসপিটালাইজেশন অথবা ডে কেয়ার, যে কোনও ধরনের চিকিৎসাই আসবে স্বাস্থ্যবিমার আওতায়। ক্লেম সেটেলমেন্টে সিদ্ধান্ত ৩০ দিনের ভিতর। আর সেটেলমেন্টে দেরি হলে দিতে হবে সুদ। কোনও পলিসিহোল্ডার টানা আট বছর তাঁর স্বাস্থ্যবিমান প্রিমিয়াম দিয়ে থাকলে তাঁর ক্লেম বাতিল করতে পারবে না বিমা সংস্থা। এছাড়া বর্তমান কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনা করে টেলিমেডিসিনকেও বিমার আওতায় আনা হচ্ছে। অর্থাৎ অনলাইনে চিকিৎসা করালেও স্বাস্থ্যবিমার ক্লেম করা যাবে। 
৭.‌ টেলিভিশন সেটের দাম বাড়বে:‌ টেলিভিশন সেট তৈরির জন্য ওপেন সেল প্যানেল বিদেশ থেকে আমদানি করতে ৫% সীমাশুল্ক দিতে হবে। আত্মনির্ভর ভারতের লক্ষ্যেই এই সিদ্ধান্ত। যাদে দেশীয় উৎপাদনে জোর দেওয়া যায়। আর বাড়তি ৫% সীমাশুল্ক দিতে হলে টেলিভিশন সেটের দাম বাড়বে।
৮.‌ ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডে নয়া নীতি:‌ ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড প্রাথমিকভাবে শুধুমাত্র দেশের মধ্যেই এটিএম এবং পয়েন্ট অফ সেলস (‌পিওএস)‌ ব্যবহারের জন্য ইস্যু করা হবে ব্যাঙ্কগুলির তরফে। দেশের বাইরে ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড ব্যবহার করতে হলে আগে থেকে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের থেকে অনুমতি নিতে হবে, দেশের বাইরে থাকার নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। গ্রাহক কার্ডের আনুষাঙ্গিক পরিষেবা পেতে নাম রেজিস্ট্রি করা, এটিএম, পিওএস এবং কার্ডহীন লেনদেনের ক্ষেত্রে লেনদেনের উর্ধ্বসীমা নির্ধারণ করা এবং দেশি–বিদেশি ও কন্ট্যাক্টলেস ট্র‌্যানজ্যাকশন পরিষেবার জন্য প্র‌য়োজনমতো নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। 
৯.‌ অন্য খাওয়ার তেলে সর্ষে মেশানো পুরোপুরি বন্ধ:‌ দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও মান নির্ণয় কর্তৃপক্ষের (ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অব ইন্ডিয়া বা এফএসএসএআই) এর নির্দেশ অনুযায়ী অন্য খাওয়ার তেলে সর্ষে মেশানো পুরোপুরি বন্ধ। উত্তর ভারতে ব্যবহার হওয়া সস্তা তেল সংক্রান্ত নতুন এই নিয়ম জারি করা হয়েছে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও মান নির্ণয় কর্তৃপক্ষের তরফে। 
১০.‌ কর আইনে বিধি বদল:‌ ২০১৮–১৯ আর্থিক বছরের আয়কর রিটার্ন যারা এখনও জমা দেননি অথবা সংশোধিত রিটার্ন জমা দিতে চান, তাঁরা এবছর ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ওই রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। বুধবার আয়কর দপ্তর ওই সমযসীমা ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর করেছে। অ্যামাজন, ফ্লিপকার্টের মতো ই–কমার্স সংস্থাগুলিকে তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রেতাদের টাকা মেটানোর সময় মোট পেমেন্টের ১% টিডিএস কাটতে হবে। 

জনপ্রিয়

Back To Top