আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দিল্লির মৌজপুরের একটি মহল্লা ক্লিনিকের চিকিৎসকের শরীরে মিলেছে করোনার হদিশ। সেই চিকিৎসকের কাছে যাঁরা দেখাতে এসেছিলেন, এবার তাঁদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন জানিয়েছেন, সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত মোট ৯০০ জনকে কোয়ারান্টাইন করে রাখা হয়েছে। জানা গেছে, ওই ৯০০ জনের মধ্যে অধিকাংশই দিল্লির মহল্লা ক্লিনিকে ওই চিকিৎসককে দেখাতে এসেছিলেন। কিন্তু পরে জানা যায়, চিকিৎসক নিজেই করোনা আক্রান্ত। দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, আগাম সতর্কতা হিসাবেই ওই ৯০০ জনকে আপাতত ১৪ দিনের জন্যে আইসোলেশনে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দিল্লিতে নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬। জানা গিয়েছে, সৌদি আরব থেকে ফেরা এক করোনা আক্রান্ত মহিলার সংস্পর্শে আসার পরেই আক্রান্ত হন ওই চিকিৎসক। তারপর রোগ ছড়ায় চিকিৎসকের স্ত্রী, মেয়ে সহ আরও একজনের শরীরে। ওই চিকিৎসক উত্তর–পূর্ব দিল্লির একটি মহল্লা ক্লিনিকে কর্মরত ছিলেন। ফলে প্রতিদিনই অসংখ্য রোগী তাঁর কাছে এসেছিল। আশঙ্কা করা হচ্ছে, সেখানেই চিকিৎসকের শরীর থেকে ওই মারণ ভাইরাস বাসা বাঁধতে পারে অন্যদের শরীরেও। রাজধানীর অলিতে গলিতে চিকিৎসা পরিষেবা দেয় মহল্লা ক্লিনিকগুলো। চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়ার আশায় প্রতিদিন সেখানে ভিড় জমান অসংখ্য রোগী। গত মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল জানিয়েছিলেন, ৩০ জন করোনা আক্রান্তদের মধ্যে থেকে কয়েকজন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। এখন হাসপাতালে ২৩ জন রোগী রয়েছেন। তবে বুধবারের পর ফের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ল।

জনপ্রিয়

Back To Top