উদয় বসু: দশমীর কাকভোরে বীজপুর থানার হালিশহর ভূতবাগান এলাকায় এক তৃণমূল কর্মীকে গুলি করে খুন করা হয়। মৃত রাজু কুর্মি (৩৮) দিনমজুর ছিলেন। নেপথ্যে পিন্টু শর্মা নামে এক জেলফেরত আসামির নাম উঠে আসছে। ঘটনার পর থেকে সে পলাতক। পুলিশ তাকে খুঁজছে। অবিলম্বে খুনিকে গ্রেপ্তার করে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। প্রাথমিক তদন্তে বীজপুর থানার পুলিশের অনুমান, পুরনো কোনও আক্রোশের জেরেই খুন। কিছুদিন আগেই হালিশহরের বাসিন্দা পিন্টু শর্মা জেল থেকে বের হয়। তার পর সে রাজুকে খুনের চক্রান্ত করে। পিন্টুর বাড়ি হালিশহর ভূতবাগান রেল কলোনি এলাকায়। বিজয়া দশমী অর্থাৎ মঙ্গলবার কাকভোরে পিন্টু রাজুর জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। হালিশহর ভূতবাগান পানবস্তির কাছে রাজুকে দেখতে পেয়ে এক মুহূর্ত নষ্ট না করে পরপর গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায় পিন্টু। রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন রাজু। স্থানীয়রা তাঁকে কল্যাণী জওহরলাল নেহরু হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগ, তাঁদের সক্রিয় কর্মী রাজুকে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতী খুন করেছে। যদিও বিজেপি–র পক্ষ থেকে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। পিন্টু একা ছিল না ওর সঙ্গে আর কেউ ছিল তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তীব্র শোকের ছায়া নেমে এসেছে রাজুর পরিবার পরিজনের মধ্যে। শোকস্তব্ধ তৃণমূল নেতা–কর্মীরা।

জনপ্রিয়

Back To Top