সংবাদ সংস্থা, পানাজি: বাংলার উঠতি প্রতিভাবান সাঁতারুকে যৌন হেনস্থায় অভিযুক্ত কোচ সুরজিৎ গাঙ্গুলিকে গ্রেপ্তার করল গোয়া পুলিশ। শুক্রবার সন্ধে নাগাদ দিল্লির কাশ্মীরি গেট এলাকার আন্তঃরাজ্য বাস টার্মিনাস থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, তাঁকে আনা হবে গোয়ায়। সেখানেই তার বিরুদ্ধে অভিযোগের যাবতীয় তদন্ত চালাবে গোয়া পুলিশ।
অভিযোগকারিণীর ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া এবং তা থেকে গোটা দেশের উত্তাল হওয়ার ঘটনার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছিলেন সুরজিৎ। তাঁর মোবাইলের লোকেশন ট্র‌্যাক করে খোঁজার চেষ্টা চালাচ্ছিল পুলিশ। প্রথমে জানা গিয়েছিল, তিনি রয়েছেন বেঙ্গালুরুতে, যেখানে একটি প্রতিযোগিতার অংশগ্রহণ করেছিল তাঁর ছেলে। কিন্তু সেখানে তাঁকে পাওয়া যায়নি। একই সঙ্গে আরও দুটি দল পাঠানো কলকাতা এবং ভোপালে। সেই সঙ্গে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাঁর ছবি–সহ অপরাধের বিবরণ ছড়িয়ে দেওয়া হয়। জানা গিয়েছে, গ্রেপ্তারি এড়াতে বিভিন্ন শহরে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন সুরজিৎ। অবশেষে একটি সূত্র মারফত খবর পেয়ে এদিন দুপুরেই দিল্লি পৌঁছয় গোয়া পুলিশ। সেখানেই কাশ্মীরি গেট এলাকায় তাঁকে আটক করা হয়।
সুরজিতের বিরুদ্ধে ৩৭৬ ধারায় ধর্ষণ–সহ একাধিক ধারায় মামলা করা হয়েছে। খোদ কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী কিরেণ রিজিজু এই ঘটনার কড়া শাস্তি দাবি করায় বিষয়টির গুরুত্ব আরও বেড়েছে। এই অবস্থায় গোয়া পুলিশ চাইছে অভিযুক্ত কোচকে কঠোর শাস্তি দিতে। গোয়ায় আনার পর তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করা হবে।
কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী রিজিজু কড়া শাস্তির কথা ঘোষণা করার পরই শুক্রবার সুইমিং ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া সুরজিৎ গাঙ্গুলিকে সাঁতার সংক্রান্ত সব ধরনের কার্যকলাপ থেকে নির্বাসিত করেছে। ফেডারেশনের তরফ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‌গোয়া সাঁতার সংস্থার রিপোর্টের ভিত্তিতে ও সোশ্যাল মিডিয়ায় পাওয়া প্রমাণের ওপর নির্ভর করে সুরজিৎকে কোচিং ও খেলাধুলা সংক্রান্ত সব ধরনের কার্যকলাপ থেকে নির্বাসিত করা হয়েছে। দেশের ২৯টি রাজ্য সংস্থাকেও এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

জনপ্রিয়

Back To Top