আজকালের প্রতিবেদন: কৃষি বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে মঙ্গলবার থেকে তৃণমূল কংগ্রেস রাস্তায় নামল। আজ, বুধবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদ সুবোধ মল্লিক স্কোয়্যার থেকে মেয়ো রোড পর্যন্ত মিছিল করবে। মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত গান্ধী মূর্তির নীচে অবস্থান করে। সিঙ্গুর থেকে এসেছিলেন বেশ কিছু মহিলা। তাঁদের মধ্যে ২০ জন কৃষক পরিবার থেকে আসা মহিলাকে মঞ্চের সামনে বরণ করা হয়। শাঁখ বাজানো হয়। সিঁদুর পরিয়ে দেওয়া হয়। অনেকেই শোলার থালার ওপর লিখে নিয়ে এসেছিলেন, কৃষকদের ভাতে মারা হল। কেউ লিখে নিয়ে এসেছিলেন, জোর করে কৃষি বিল পাশ করানো হয়েছে। কেউ লিখে এনেছিলেন, বিজেপি দূর হটো। প্রথম থেকেই মঞ্চে ছিলেন তৃণমূল মহিলা কংগ্রেসের সভানেত্রী ও মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, মন্ত্রী শশী পাঁজা, মন্ত্রী রত্না ঘোষ কর, মন্ত্রী অসীমা পাত্র, বিধাননগর পুরসভার মেয়র কৃষ্ণা চক্রবর্তী, সাংসদ মালা রায় ছাড়াও সোনালি গুহ, মালা সাহা, স্মিতা বক্সি। ওয়ার্ড কো–অর্ডিনেটরদের মধ্যে ছিলেন রত্না শূর, অনিতা কর মজুমদার, সঞ্চিতা মিত্র, জুহি বিশ্বাস, সোমা চৌধুরি, পারমিতা চ্যাটার্জি, শিখা সাহা, স্বপ্না দাস। দক্ষিণ কলকাতার তৃণমূল মহিলা কংগ্রেস নেত্রী চৈতালি চট্টোপাধ্যায়। জেলা সভানেত্রীদের মধ্যে ছিলেন কেয়া দাস, রেখা রাউত ও করবী মান্না।
এদিন বক্তব্য পেশ করেন অনেকেই। কাঁসর ঘণ্টা বাজান কৃষ্ণা চক্রবর্তী। মাঝে মধ্যেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে স্লোগান। চন্দ্রিমা বলেন, ‘‌এই কৃষি বিল পাশ করার ফলে কৃষকদের দুর্দশা আরও বাড়বে। আমাদের আন্দোলন চলবে।’‌ শশী বলেন, ‘‌কৃষকদের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে গেল। এর ফলে এদের সামনে অন্ধকার দিন আসবে।’‌ বৃহস্পতিবার ছাত্র পরিষদের কর্মসূচির পর টানা আন্দোলন চলবে। রাজ্যের কিসান খেত মজদুর সংগঠনের সভাপতি বেচারাম মান্না জানিয়েছেন, বৃহস্পতি ও শুক্রবার তাঁদের কর্মসূচি আছে। দক্ষিণ কলকাতা থেকে অনেক মহিলা এসেছিলেন।
 

জনপ্রিয়

Back To Top