আজকালের প্রতিবেদন
সিপিএমের বিধায়ক রফিকুল ইসলাম দল ছেড়ে শুক্রবার তৃণমূলে যোগ দিলেন। তাঁকে নিয়ে এদিন তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠকও করা হয়। সাংবাদিক বৈঠকে ছিলেন রাজ্যের তিন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, সাধন পান্ডে ও জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এছাড়াও ছিলেন বিধানসভার মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ ও ওয়ার্ড কো–অর্ডিনেটর নারায়ণ গোস্বামী। এদিন বহুজন সমাজপার্টির বেশ কিছু কর্মীকে নিয়ে সাধারণ সম্পাদক বিএন প্রসাদ তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন।
সাংবাদিকদের অরূপ বলেন, ‘‌মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির উন্নয়নে শামিল হতে সিপিএম, কংগ্রেস ও বিজেপি ছেড়ে অনেকেই তৃণমূলে আসছেন। বিজেপি সাম্প্রদায়িক দল। দাঙ্গা করে। তাদের সঙ্গে সাধারণ মানুষ থাকতে পারে না।  সিপিএম আইসিইউতে চলে গেছে। আর উঠে দাঁড়াতে পারছে না। তবে বিজেপিকে মদত দিয়ে যাচ্ছে। যদিও এতে কোনও লাভ হবে না।’‌ সাধন পান্ডে বলেন, ‘‌বিভিন্ন জেলা থেকে বহুজন সমাজপার্টির নেতা ও কর্মীরা তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। আমরা তাঁদের স্বাগত জানাই।’‌ অরূপ বলেন, ‘‌বিজেপি বাংলাকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। বাংলাকে ছোট করছে। সাধারণ মানুষই ওদের বাংলা ছাড়া করবে।’‌
 এদিন রফিকুল ইসলামের হাতে দলের পতাকা তুলে দেওয়া হয়। তিনি বলেন, ‘‌২০১৬–র আগে আমি তৃণমূল করতাম। সামান্য ভুল বোঝাবুঝি হওয়ায় আমি বসিরহাট উত্তর থেকে বামফ্রন্টের প্রার্থী হই। এখন দেখছি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে উন্নয়ন করছেন তাতে শামিল না হয়ে পারা যায় না। সাম্প্রদায়িক দল বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে লড়ছে তৃণমূল।’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top