আজকালের প্রতিবেদন
করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারের প্রশ্নে রাজ্যের আর্জি মেনে কলকাতা হাইকোর্ট নতুন নির্দেশিকা জারি করল। গত ১৬ সেপ্টেম্বরের রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে মামলা দায়ের করে রাজ্য সরকার। তার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার প্রধান বিচারপতি টি বি রাধাকৃষ্ণনের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে, পূর্বের নির্দেশ অনুযায়ী হাসপাতালে থেকে যাবতীয় সুরক্ষাবিধি মেনে মৃতদেহ দেওয়া হবে তার পরিবারের কাছে। তবে হাসপাতালের কাছাকাছি শ্মশান বা কবরস্থানে দেহ সৎকার করতে হবে। তবে ৬ জনের বেশি পরিবারের লোক যেতে পারবে না সৎকারে। যে পরিবারের ছেলে নেই, সে পরিবারের মেয়েরাই সৎকার করতে পারবে।
এর আগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর করোনায় মৃতের সৎকারের জন্য বিশেষ নির্দেশিকা দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। একটি জনস্বার্থ মামলার নিষ্পত্তি করতে গিয়ে প্রধান বিচারপতি টি বি রাধাকৃষ্ণন ও বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ মন্তব্য করে, ‘‌করোনায় মৃত্যু হলেও মৃতদেহের ওপর অধিকার পরিবারের রয়েছে এবং সৎকারের আগে পারলৌকিক ক্রিয়া করার স্বীকৃতি দিতে হবে।’‌ তাই স্বাস্থ্য দপ্তরের গত জুনের নির্দেশিকাকে সংশোধন করে আদালতের নির্দেশ, মৃত্যুর পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে প্রক্রিয়া শেষ করে মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দিতে হবে। যিনি মৃতদেহ নেবেন তিনি হাতে গ্লাভস, মাস্ক পরে স্যানিটাইজেশন প্রক্রিয়া মেনে তা গ্রহণ করে শেষকৃত্যের জন্য নিয়ে যাবেন। মৃতদেহ একটি প্লাস্টিকের থলিতে মুড়ে রাখতে হবে, তবে মুখের ওপরে স্বচ্ছ রাখতে  হবে। দাহ বা কবরের আগেও শেষ বার দেখার সুযোগ–‌সহ রীতি মেনে পরিবারকে নিয়ম বা শেষ কাজের সুযোগ দিতে হবে। তবে আদালত জানিয়েছে, এই নির্দেশিকার সঙ্গে রাজ্য চাইলে প্রয়োজন মতো অতিরিক্ত নির্দেশ যুক্ত করতে পারে।
করোনায় মৃত্যু হলে এই রাজ্যে যথাযথভাবে মৃতদেহের সৎকার হচ্ছে না এবং পরিবারকে শেষ দেখা বা পারলৌকিক কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না, এই অভিযোগ তুলে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন সমাজকর্মী বিনীত রুইয়া।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top