দীপঙ্কর নন্দী: পোস্তাবাজারে জগদ্ধাত্রী পুজোর উদ্বোধন করতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এলাকার বাসিন্দাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‌গুন্ডা ও বহিরাগতদের বিরুদ্ধে আপনাদের প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আমাদের সরকার আপনাদের পাশে আছে। যতই চেষ্টা করুক, জোর করে কেউ জমি দখল করতে পারবে না।’‌
পোস্তা জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটির পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করা হয়, পোর্ট ট্রাস্ট থেকে ক্রমাগত হুমকি দেওয়া হচ্ছে। বাজার বন্ধ করে দেওয়ার কথা প্রায়ই বলা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘‌পোস্তাবাজার বন্ধ করা চলবে না।’‌
 ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌কারও কথা আপনারা শুনবেন না। হুমকি দিলেই হল না। তারা জেনে রাখুক আইনশৃঙ্খলা রাজ্যের হাতে। প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাপুরুষরা লড়তে ভয় পায়। যারা মানুষের হয়ে লড়াই করে, তারা ভয় পায় না। আপনাদের লড়াইয়ে আমি আছি। নিশ্চিন্তে আপনারা নিজেদের ব্যবসা করুন। আপনাদের যে সব সমস্যা আছে তা দ্রুত সমাধানের জন্য আমি আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক, মন্ত্রী শশী পাঁজা, সাংসদ সুদীপ ব্যনার্জি, বিধায়ক স্মিতা বক্সি, পোস্তা মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সীতানাথ ঘোষের সঙ্গে কথা বলব। চিন্তা করার কোনও কারণ নেই। কোনও কোনও রাজনৈতিক দল এখানে অশান্তি করার চেষ্টা করবে। গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই। রুখে দাঁড়ালেই দেখবেন অনেকটা কাজ হয়ে গেছে।’‌
পোস্তাবাজারের মজদুরদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, ‘লকডাউনের সময়ে আমরা আপনাদের পাশে ছিলাম। খাওয়াদাওয়ার অসুবিধে আপনাদের হয়নি। ভয় পাওয়ার কোনও দরকার নেই। নিশ্চিন্তে বাংলায় থাকুন। কোনও সমস্যায় পড়লে স্থানীয় নেতাদের কাছে বিস্তারিতভাবে সব বলবেন। দেখবেন সব সমস্যা মিটে গেছে। পোর্ট ট্রাস্ট যতই হুমকি দিক মাথা নত করবেন না। আমরা অনেক হুমকি শুনেছি। লড়াই করতে হবে। এই লড়াইয়ে আপনারা আমাকে পাবেন।’‌ এদিন মুখ্যমন্ত্রী জগদ্ধাত্রী প্রতিমার উদ্বোধন করেন। কোভিড বিধিনিষেধ মেনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়েছে। ছিলেন সুদীপ ব্যানার্জি, শশী পাঁজা, স্মিতা বক্সি, সঞ্জয় বক্সি, সীতানাথ ঘোষ, বিশ্বনাথ আগরওয়াল, সন্দীপ আগরওয়াল, গৌতম গুপ্তা প্রমুখ। কোভিডের স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাইরেও মঞ্চ বাঁধা হয়নি। প্রতিমার উদ্বোধন করার পর, মণ্ডপের বাইরে এসে মুখ্যমন্ত্রী দাঁড়িয়ে তাঁদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য পেশ করেন। প্রতিবার তিনি এখানে জগদ্ধাত্রী প্রতিমার উদ্বোধন করেন। নগরপাল অনুজ শর্মাও ছিলেন।

জনপ্রিয়

Back To Top