‌আজকালের প্রতিবেদন: পুজোর দিনগুলিতে রাজ্যে বিদ্যুৎ পরিষেবা নিরবচ্ছিন্ন রাখার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার জানিয়েছেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চ্যাটার্জি। তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যে শিল্পক্ষেত্রে জুলাই মাস থেকে ধীরে ধীরে চাহিদা বেড়েছে। ছোট ও মাঝারি শিল্প কারখানাগুলি খুলেছে। লকডাউনের সময় বিদ্যুতের চাহিদা প্রায় ২২ শতাংশ কমে গিয়েছিল। তবে সেই পরিস্থিতি বদলেছে। চাহিদা বাড়ছে। তবে, লকডাউনের সময় গার্হস্থ্য চাহিদা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল। গোটা রাজ্যে সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকেই বিদ্যুতের চাহিদা বেড়েছে।
বিদ্যুৎমন্ত্রী জানান, পুজোর দিনগুলিতে মোট ৮ হাজার ৪১৪ মেগাওয়াট বিদ্যুতের প্রয়োজন। এনটিপিসি, ডিভিসি’‌র সঙ্গে ইতিমধ্যে কথাবার্তা হয়ে গেছে। তারা আশ্বাস দিয়েছে কোনও সমস্যা নেই। সিইএসসি–‌র সঙ্গেও কথা হয়েছে। কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নহীন থাকার জন্য তারাও বদ্ধপরিকর। পুজোকমিটিগুলি জানিয়েছে, অন্যান্য বারের তুলনায় এ বছর বিদ্যুতের প্রয়োজন কিছুটা হলেও কম হবে। তবুও প্রস্তুতি সর্বাঙ্গীন রাখা হচ্ছে। হঠাৎ চাহিদা বেড়ে গেলে যাতে জোগান দিতে কোনও রকম অসুবিধা না হয়।
বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ১৩ লক্ষ ২৭ হাজার ৮৮০ মেট্রিক টন কয়লা মজুত করা আছে। শোভনদেব চ্যাটার্জি বলেছেন, করোনা এবং তার পরবর্তী আমফান ঝড়ে রাজ্যের বহু জায়গায় বিদ্যুৎ পরিষেবা দিতে সমস্যা হয়েছিল। কিন্তু বিভিন্ন এলাকায় পরিস্থিতির সঙ্গে অসম লড়াই করে, কোমর জলে দাঁড়িয়ে বিদ্যুতের খুঁটি লাগানো হয়েছে। সংযোগ দেওয়া হয়েছে।
 

জনপ্রিয়

Back To Top