আজকালের প্রতিবেদন
শুক্রবার নির্বিঘ্নে মিটল ছটপুজো। তৎপর ছিল রাজ্য সরকার। পাশাপাশি সকাল থেকে সন্ধে পর্যন্ত কড়া পুলিশি প্রহরা ছিল রবীন্দ্র সরোবর ও সুভাষ সরোবরের সামনে। বাঁচল কলকাতার দুই ফুসফুস। জিতল পুলিশ আর পরিবেশ সম্পর্কে সাধারণ মানুষের সচেতনতা। পরিবেশ কর্মী এবং সাধারণ মানুষ যেভাবে দুই সরোবরে দূষণ রুখতে উদ্যোগী হয়েছিলেন। তারই ফলশ্রুতি, দুই সরোবরই দূষণ থেকে বাঁচল। জাতীয় পরিবেশ আদালতের নির্দেশই বহাল রেখেছিল সুপ্রিম কোর্ট। ফলত, রবীন্দ্র সরোবর ও সুভাষ সরোবর, কোনও জায়গাতেই ছটপুজোয় পুণ্যার্থীরা পুজো দিতে যেতে পারেননি। পুজো হল কৃত্রিম জলাশয়ে, পুকুরে। পুলিশ পিকেট ছিল বিভিন্ন জায়গায়। তবে, দিনের শুরুতে রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো দিতে চেয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন পুণ্যার্থীরা। পুলিশ শক্ত হাতে সামাল দিয়েছে। তাঁদের দাবি ছিল, ৪ ঘণ্টার জন্য পুজোর অনুমতি দেওয়া হোক। এদিন সকালে বেশ কিছু পুণ্যার্থী সরোবরে ঢোকার চেষ্টা করেন। আগে থেকেই ১, ২ এবং ৩ নম্বর গেটে পুলিশ ছিল। পুলিশের সঙ্গে তর্কাতর্কি হয় কিছুক্ষণ। কিন্তু স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়, কোনও ভাবেই ঢোকা যাবে না।
ছটপুজোয় যাতে সমস্যা না হয়, তাই শহরের বিভিন্ন জায়গায় বহু কৃত্রিম জলাশয় করা হয়েছিল। ৪৪টি ঘাট তৈরি করা হয়েছিল। ছটপুজো নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি উদয় উমেশ ললিতের নেতৃত্বে তিন বিচারপতির বেঞ্চে ছটপুজো নিয়ে মামলার শুনানি হয় বৃহস্পতিবার। কলকাতা হাইকোর্ট ও জাতীয় পরিবেশ আদালতের নির্দেশই বহাল রেখেছিল সুপ্রিম কোর্ট। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি আবেদন জানিয়েছিলেন, ছটপুজো উপলক্ষে নদী, পুকুর, জলাশয়ে যেন ভক্তরা ভিড় না করেন। করোনা বিধিনিষেধ লঙ্ঘন না করার কথাও তিনি বলেছিলেন। আদালতের নির্দেশ মেনে ছটপুজোর আবেদন জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেছিলেন, ‘‌ছটপুজো করুন। কিন্তু, আদালতের রায় অবমাননা করবেন না।’‌
শুক্রবার সকাল থেকে শহরের বেশ কিছু জায়গায় কৃত্রিম জলাশয় হয়েছিল। গরচা রোড, বাগবাজার, ঢাকুরিয়া, পণ্ডিতিয়া রোডে কৃত্রিম জলাশয় করা হয়েছিল। অনেকেই সেখানে পুজো দিয়েছেন। আজ শনিবারও ছটপুজো আছে। এদিন অন্যান্য বারের মতো গাড়িতে, ছোট ম্যাটাডরে বা লরিতে বহু মানুষের ফলের ঝুড়ি, আখ ইত্যাদি নিয়ে পুজো দেওয়ার ভিড় কম দেখা গেছে। কলকাতা হাইকোর্ট আগেই নিষেধ করেছিল, ছটে কোনও ধরনের মিছিল বা ডিজে বাজানো যাবে না। এদিন অবশ্য ডিজে সেভাবে বাজতে শোনা যায়নি। অন্যদিকে, বাজি পোড়ানোর ঘটনাও কানে সেভাবে আসেনি।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top