দীপেন গুপ্ত,পুরুলিয়া: পুরুলিয়ার সাহেব বাঁধে শুরু হল শিকারার যাত্রা। ভূস্বর্গে না গিয়েও হাতের কাছেই এবার কাশ্মীরের ডাল লেকের মতো শিকারা পেয়ে আবেগে ভাসলেন সকলে। পুরুলিয়া জাতীয় সরোবর সাহেব বাঁধে মঙ্গলবার এই শিকারার উদ্বোধন করলেন পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো।
শুক্রবার পুরুলিয়া সাহেব বাঁধে তিনটি শিকারা নিয়ে হাজির হয়েছিলেন কাশ্মীরের শিকারা ব্যবসার সঙ্গে যুক্তরা। 
পুরুলিয়া পুরসভার পুরপ্রধান শামিম দাদ খান বলেন, ‘‌আমরা চুক্তি করে এসেছিলাম কাশ্মীরের ডাল লেকের একটি হাউসবোট অথরিটির সঙ্গে, তারা শিকারা নিয়ে এসেছে। এদিন থেকে শুরু হল তার পথচলা। গুল, গুনশন, গুলফাম নামে তিনটি শিকারা চালানো হবে পরে আরও তিনটি শিকারা নিয়ে আসা হবে। পুজোর আগে এটা একটা বিশেষ উপহার পুরুলিয়া পুরসভার পক্ষ থেকে। খুব কম টাকায় শিকারার আনন্দ নিতে পারবেন পর্যটকেরা।’‌ এদিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন পুরুলিয়ার সাংসদ মৃগাঙ্ক মাহাতো, পুরপ্রধান শামিম দাদ খান–সহ সমস্ত  কাউন্সিলর ও আধিকারিকরা। 
পুরুলিয়া সাহেব বাঁধে শিকারা চালানোর বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলেন জেলার বিশিষ্ট লেখক, পুরুলিয়া সাহেব বাঁধ সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা ভাস্কর বাগচি। এদিন তিনি বলেন, ‘‌আমার খুব আনন্দ হচ্ছে আজ।’‌ কাশ্মীরের ডাল লেকের মতো বা কেরলের ব্যাক ওয়াটারের মতো পুরুলিয়া সাহেব বাঁধে চারটি হাউসবোট করার প্রস্তাব দেন তিনি। এদিন মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো বলেন, ‘‌রাজ্যের মধ্যে একমাত্র জেলা যেখানে মানুষ ভূস্বর্গের আনন্দ উপভোগ করবেন। পুজোর আগে এটা বড় পাওনা।’‌‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top