নিরুপম সাহা,ঠাকুরনগর: প্রয়াত বড়মা বীণাপাণি ঠাকুরের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের কাজ এখনও হয়নি। ফলে এখনও ঠাকুরবাড়ি চত্বর জুড়ে শোকের আবহ। তারই মধ্যে লোকসভা ভোটের দামামা বেজে উঠেছে। নির্বাচন কমিশন ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করে দিয়েছে। ইতিমধ্যে তৃণমূল তাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে দিয়েছে। সেই তালিকায় এবারও বনগাঁ লোকসভার সংরক্ষিত আসনের জন্য তৃণমূল ঠাকুরবাড়ির বড় বউমা মমতাবালা ঠাকুরকেই প্রার্থী করেছে। এই অবস্থায় বড়মার প্রয়াণের কষ্ট বুকে চাপা রেখে, বড়মার ছবিতে প্রণাম করে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নিজের সংসদীয় এলাকায় প্রচারের কাজ শুরু করে দিলেন মমতাবালা ঠাকুর।
তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই সেই সময়ের গাইঘাটার তৃণমূল বিধায়ক জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের হাত ধরে ঠাকুরবাড়ির সঙ্গে তৃণমূলের সম্পর্ক তৈরি হয়। পরে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে একাধিকবার ঠাকুরবাড়ি তথা বড়মার কাছে আসা–যাওয়া করতে করতে বড়মার সঙ্গে মা–মেয়ের সম্পর্ক তৈরি হয় মমতা ব্যানার্জির। সেই সম্পর্কের জেরে বড়মার আবদার মেনে মুখ্যমন্ত্রী ঠাকুরবাড়ি এবং মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষদের জন্য প্রচুর উন্নয়নমূলক কাজকর্ম করেছেন। এখনও করছেন। সেই সম্পর্কের জেরেই গত লোকসভা নির্বাচনে বনগাঁ কেন্দ্রের জন্য মমতা ব্যানার্জি বড়মার বড় ছেলে কপিলকৃষ্ণ ঠাকুরকে প্রার্থী করেন। তিনি জয়ীও হন। যদিও এক বছরের মধ্যে তাঁর অকাল প্রয়াণ ঘটে। উপনির্বাচনে প্রয়াত কপিলকৃষ্ণের স্ত্রী মমতাবালা ঠাকুরকে প্রার্থী করেন মমতা ব্যানার্জি। ২ লক্ষের বেশি ভোটে জয়ী হন মমতাবালা ঠাকুর। এবার সেই জয়ের ব্যবধান আরও বাড়াতে চায় তৃণমূল। সেই লক্ষ্যে ঠাকুরবাড়ির বড় বউমা এবং বড়মা বীণাপাণি ঠাকুরের সব থেকে কাছের সঙ্গী মমতাবালা ঠাকুরকে ফের প্রার্থী করেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। মমতাবালা ঠাকুর বলেন, ‘‌মতুয়া সম্প্রদায়ের পাশাপাশি এলাকার মানুষদের পাশে থাকার জন্য গত প্রায় ৪ বছরে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। এই অবস্থায় মমতা ব্যানার্জি ফের আমাকে প্রার্থী করেছেন। তাই নতুন করে অসম্পূর্ণ কাজগুলির পাশাপাশি আরও নতুন নতুন কাজ করতে চাই।’‌ 
সব কিছুর ভেতরে এখনও মনের মধ্যে একটা চাপা কষ্ট সবসময় খোঁচা দিচ্ছে ঠাকুরবাড়ির বড় বউমাকে। কিছুতেই যেন বড়মার চলে যাওয়াকে মেনে নিতে পারছেন না তিনি। কিন্তু পরিস্থিতির কারণে মনকে শক্ত করে এখন ভোটের জন্য প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকালে ভোটপ্রচারে বেরোনোর আগে বড়মার ঘরে গিয়ে বড়মার ছবির সামনে প্রণাম করে, বড়মার আশীর্বাদকে পাথেয় করে বাড়ি থেকে বের হলেন তিনি। তাঁর আশা, বড়মার আশীর্বাদ এবং মমতা ব্যানার্জির আদর্শ ও উন্নয়নের জেরে এবারও তিনি জয়ী হবেন।

ভোটপ্রচারে বেরোনোর আগে বড়মার ছবির সামনে প্রণাম মমতাবালা ঠাকুরের। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top