নিরুপম সাহা, পেট্রাপোল, ১৫ জুলাই- বাংলাদেশে পণ্য খালাস করতে যাওয়া ভারতীয় ট্রাকগুলির ওপর শ্রমিকদের অর্থনৈতিক অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার‌ পেট্রাপোল সীমান্তে বাণিজ্য বন্ধ রাখলেন পরিবহণ শ্রমিক এবং মালিকেরা। এর ফলে এই সীমান্ত দিয়ে আমদানি–রপ্তানি বাণিজ্যে বিঘ্ন ঘটে। সীমান্তে রাস্তার দু’‌ধারে দঁাড়িয়ে পড়ে একের পর এক লরি।
রপ্তানি বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত শ্রমিক, মালিকদের অভিযোগ, ভারত থেকে বাংলাদেশের বেনাপোলে পণ্য খালাস করতে যাওয়া ভারতীয় ট্রাক প্রতি বকশিশ হিসেবে সে দেশের শ্রমিকেরা এক সময় ১০ টাকা করে নিত। সেই দাবি বাড়তে বাড়তে এখন ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকায় দঁাড়িয়েছে। দাবিমতো সেই টাকা না দিতে চাইলে ট্রাকের চালক, সহকারীদের সঙ্গে অশ্লীল ভাষায় কথা বলা হয়। কখনও কখনও শারীরিকভাবে হেনস্থাও করা হয় বলে অভিযোগ। ফলে মারাত্মক সমস্যায় পরতে হচ্ছে তঁাদের। এই ঘটনায় ভারতীয় ট্রাক চালকেরা পণ্য বোঝাই ট্রাক নিয়ে বাংলাদেশে যেতে চাইছেন না। ফেডারেশন অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহ–সম্পাদক দিলীপ দাস জানান, নিয়ম অনুযায়ী ভারত থেকে পণ্য বোঝাই করে বাংলাদেশের বেনাপোলে গিয়ে বিনা অর্থে পণ্য খালাস করে আসবেন ট্রাক চালকরা। তার পরও মানবিক কারণে সেই শ্রমিকদের কিছু বকশিশ দেওয়া হয়। কিন্তু সেই দাবি এখন রীতিমতো অত্যাচারে পরিণত হয়েছে।

পেট্রাপোল সীমান্তে দঁাড়িয়ে রয়েছে পর পর ট্রাক। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top