অমিতকুমার ঘোষ, কৃষ্ণনগর‌: হাঁসখালির বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাসকে খুন করে যারা ভাবছে নদিয়ায় তৃণমূলকে শেষ করবে, তারা  মূর্খের স্বর্গে বাস করছে বলে জানিয়ে দিলেন রাজ্যের মন্ত্রী, নদিয়া জেলায় তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি। রবিবার কৃষ্ণনগরের শক্তিনগর হাসপাতালে নিহত সত্যজিতের দেহের পাশে দাঁড়িয়ে পার্থ আরও বলেন, ‘এরা জানে না, তৃণমূল দলটার নেত্রী মমতা ব্যানার্জি। সত্যজিৎকে যারা খুন করেছে, তারা যে দলের এবং যত বড় নেতাই হোক, ছাড় পাবে না। প্রশাসনকে বলা হয়েছে, কারণ অনুসন্ধান করে দোষীদের কঠোর শাস্তি দিতে। তবে আমরাও যেন কোনও প্ররোচনায় পা না–দিই।’ ঘটনায় মমতা শোকস্তব্ধ, জানিয়ে পার্থ বলেন, ‘বিভেদ সৃষ্টিকারী বিজেপি ভাবছে, একটা খুন করে নেতৃত্বের অভাব ঘটিয়ে ভোট করাবে। বহু রক্তের বিনিময়ে একাধিকবার মার খেয়ে মমতা ব্যানার্জি রাজ্যে পরিবর্তন এনেছেন। বিজেপি কালো মুখগুলিকে সামনে এনে মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে সন্ত্রাস করতে চাইছে। আমরা তা হতে দেব না। আমরা রাজনৈতিকভাবে ঘটনার মোকাবিলা করব।’‌ বিজেপি–কে ‘প্যারাস্যুট পার্টি’ বলেও কটাক্ষ করে পার্থ বলেন, ‘‌বিজেপি–র সঙ্গে মানুষের যোগ নেই। তারা প্যারাস্যুটে করে নামে। আবার উড়ে চলে যায়। এ রাজ্যে ওদের নেতা নেই। তাই প্যারাস্যুটে করে অন্য রাজ্যের নেতা নামাতে হয়।’‌ শোকের আবহের মধ্যেও তিনি মনে করিয়ে দেন, ‘‌আমাদের উন্নয়নই শেষ কথা বলবে। মানুষ আমাদের সঙ্গেই থাকবেন। তাঁদের বোঝাতে হবে, এই ধরনের রাজনীতি ফিরে এলে কত ক্ষতি হবে।’‌ 
আজ, সোমবার কৃষ্ণনগরে আসার কথা সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জির। এদিন এসেছিলেন তৃণমূলে নদিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা অনুব্রত মণ্ডল। তিনি বলেন, ‘বিজেপি এই খুনের পিছনে জড়িত।’‌ তৃণমূলের জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর দত্ত এদিনও বলেন, ‘‌এই খুনের পিছনে বিজেপি–ই।’‌ নিহত বিধায়কের ভাইরাও খুনে বিজেপি–র হাত র‌য়েছে বলে দাবি করেছেন। 
মৃত সত্যজিৎ সম্পর্কে বলতে গিয়ে পার্থ বলেন, ‘সত্য আমার ঘনিষ্ঠ ছিল। লড়াকু নেতা ছিল। মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে প্রিয় ছিল। ক’‌দিন আগেও আমার বাড়ি গিয়েছিল। সত্য নেই, ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে।’ সত্যজিতের দেহ জেলা হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর কৃষ্ণনগরের দলীয় অফিসে নিয়ে আসা হয়। সত্যজিতের বাড়িতে যান মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, রত্না ঘোষ ও উজ্জ্বল বিশ্বাস। ছিলেন জেলা সভাধিপতি রিক্তা কুণ্ডু, বিধায়ক মহুয়া মৈত্ররা। বাড়িতে সত্যজিতের স্ত্রী রূপালি ও মা অঞ্জনাদেবীর সঙ্গে কথা বলেন পার্থ। তিনি তাঁদের বলেন, ‘‌দল আপনাদের সঙ্গে আছে। দোষীরা শাস্তি পাবেই।’‌ সত্যজিৎকে বিদায় জানানোর জন্য মাঠে মঞ্চ বঁাধা হয়েছিল। বহু মানুষ সেখানেই জনপ্রিয় বিধায়ককে শেষ শ্রদ্ধা জানান।         ছবি: অভিজিৎ মণ্ডল

জনপ্রিয়

Back To Top