স্বদেশ ভট্টাচার্য, টাকি: বসিরহাটে বিজয়ার উৎসবে অংশ নিলেন সাংসদ, বিধায়ক, পুরপ্রধানরা। টাকির ইছামতীর বুকে দুর্গা প্রতিমার বিসর্জনে দুই বাংলার মিলিত উৎসব দেখে অভিভূত অভিনেত্রী সাংসদ নুসরত জাহান। মঙ্গলবার নুসরত ও তঁার স্বামী নিখিল জৈন টাকিতে উপস্থিত ছিলেন। নুসরতের সঙ্গে ছিলেন বিধায়ক দীপেন্দু বিশ্বাস, জেলা তৃণমূলের কার্যনির্বাহী সভাপতি, জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ নারায়ণ গোস্বামী, টাকির উপ–‌পুরপ্রধান আজিজুল গাজি প্রমুখ।
স্বামী নিখিলকে সঙ্গে নিয়ে নুসরত দুপুরে লঞ্চে ওঠেন। লঞ্চেই মধ্যাহ্নভোজ সারেন মুরগি ও পাঁঠার মাংস, মাছের সাত রকম পদ দিয়ে। হাসনাবাদ থেকে লঞ্চ ‘‌এম ভি সুখদা’‌ সাংসদকে নিয়ে টাকিতে পৌঁছনোর আগেই ইছামতীর দু’ধারে দুই বাংলার মানুষ হাজির। অভিভূত সাংসদ বলেন, ‘‌আমি আগে শুনেছি এই নদীতে দুই দেশের মানুষ একসঙ্গে উৎসব পালন করে। এই উদ্যোগটাই আমার দারুণ লাগে। প্রথমবার যখন আমি এখানে এসেছিলাম তখন শুনেছিলাম দুটো দেশের মানুষ একসঙ্গে ঠাকুরের বিসর্জন দেয়। যেভাবে সম্প্রীতির টানে সকলে মিলেমিশে উৎসব পালন করছেন তা যেন আগামী দিনেও বজায় থাকে।’‌ 
টাকির বিজয়ার গরিমা আগের থেকে এখন অনেক ম্লান, তা ফিরিয়ে আনতে সাংসদ হিসেবে কী পরিকল্পনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মানুষকে বেশিদিন দূরে সরিয়ে রাখা যায় না। মনের টান সবসময় থাকে। মানুষ যেভাবে আনন্দ উপভোগ করছে সেটাই এখন আমার কাছে খুব বড় ব্যাপার।’‌ শুধু নুসরত নন, পুজোয় এমন অভিজ্ঞতা এই প্রথম তঁার স্বামী নিখিল জৈনের। পাড়ে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষের দিকে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান নুসরত। নিখিল ও দলের নেতাদের সঙ্গে সেলফিও তোলেন তিনি। লঞ্চ থেকে নেমে বহু মানুষের সঙ্গে কথা বলেন।

জনপ্রিয়

Back To Top