প্রদীপ দে, বহরমপুর: ‘‌মুর্শিদাবাদে এনআরসি–র কোনও কিছু হচ্ছে না। অহেতুক ভয় পাবেন না।’‌ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এমন প্রচার শুরু হয়েছে ব্লকে ব্লকে। একই সঙ্গে পুলিশও খোঁজ নিচ্ছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় কারা গুজব, আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। অসমে এনআরসি–‌র তালিকা প্রকাশের পর বিজেপি নেতারা হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন, বাংলাতেও চালু হবে এনআরসি। একই সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়িয়েছে, অবিলম্বে তথ্য যাচাই করে নিন। না হলে ভিটেছাড়া হতে হবে। ব্যস, মানুষের ঢল আছড়ে পড়ছে ব্লকের সরকারি দপ্তরে।
মুর্শিদাবাদ সীমান্ত জেলা। সংখ্যালঘু মানুষের বসবাস বেশি। জেলা প্রশাসন সূত্রে খবর, এই মুহূর্তে জেলা জুড়ে চলছে তিনটি কর্মকাণ্ড। এক, ভোটার তথ্য যাচাই। দুই, রেশন কার্ডে নাম তোলা ও সংশোধন। তিন, আধার কার্ড সংশোধন। ভোটার তথ্য যাচাই অনলাইনে করা যাচ্ছে। এতে নাম, ঠিকানার গরমিল থাকলে সংশোধন করা যাবে। গত ১৫ দিনে জেলায় প্রায় ৫ লাখ ভোটার তথ্য যাচাই প্রক্রিয়ায় যোগ দিয়েছেন। এটি ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে। রেশন কার্ড নতুন করা, সংশোধন করার কাজ শুরু হয়েছে ১ সেপ্টেম্বর থেকে। জেলা খাদ্য দপ্তরের হিসেব, প্রায় আড়াই লাখ আবেদন জমা পড়েছে। একই সঙ্গে চলছে আধার কার্ড করার কাজও। বিজেপি–র হুমকি, সোশ্যাল মিডিয়ার গুজবে মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে দৌড়ে যাচ্ছেন ব্লকে। কাতর স্বরে আবেদন, ‘‌নথিপত্র দিন, নইলে দেশ ছাড়তে হবে।’‌ গণ–‌হিস্টিরিয়ার মতো এটি ছড়িয়েছে।
জেলাশাসক জগদীশপ্রসাদ মিনা বলেছেন, ‘‌নির্ভুল ভোটার তালিকা করার জন্য ভোটারদের তথ্য যাচাই চলছে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে। এর সঙ্গে এনআরসি–‌র কোনও সম্পর্ক নেই। বাকি যে সব সংশোধনের কাজ চলছে, তা সরকারি নিয়মে। কেউ কোনও ভয় পাবেন না। গুজবে কানও দেবেন না। আমরা মানুষের কাছে প্রচারও করছি, কোনও রকম আতঙ্কিত হবেন না।’‌ জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এনআরসি নিয়ে কোনও নির্দেশ আসেনি। এমনকী এও রটে গেছে, এনআরসি–‌র কারণে ডোমকলে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু পুলিশ, প্রশাসন সাফ জানিয়েছে, এনআরসি নিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা সঠিক নয়। কারণ, মৃতের কোনও সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি। থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি। এমনকী পরিবার মৃতদেহের ময়নাতদন্তও করাননি। তবে পুলিশ প্রশাসন মানুষদের সজাগ, সচেতন করার চেষ্টা করলেও মানুষের মনে অজানা একটা ভয় ঢুকে গেছে। যে কারণে সীমান্তের জেলার মানুষ নথিপত্র পেতে ছুটছেন অফিসে অফিসে। তবে তৃণমূল, কংগ্রেস, সিপিএম রাজনৈতিক দলগুলিও গ্রামে গ্রামে প্রচার করছে, এনআরসি নিয়ে ভয় পাবেন না। বাংলায় এসব হবে না।‌‌

ডোমকলে প্রচার প্রশাসনের। ছবি: চয়ন মজুমদার

জনপ্রিয়

Back To Top