উদয় বসু: নৈহাটি ছাইঘাটে বাজি ও বাজির মশলা বিস্ফোরণের ঘটনার ৮ দিনের মাথায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৬৪ বাসিন্দার হাতে ক্ষতিপূরণের চেক তুলে দিল রাজ্য সরকার। শুক্রবার এই চেক প্রদান অনুষ্ঠানে ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী, ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা, বিধায়ক পার্থ ভৌমিক প্রমুখ। এত দ্রুত ক্ষতিপূরণ পেয়ে স্বস্তিতে ক্ষতিগ্রস্তরা।
৩ জানুয়ারি নৈহাটির দেবকে বাজি কারখানা বিস্ফোরণের ঘটনায় ২ মহিলা–সহ ৪ জন মারা যান। ক্ষতি হয় অনেক বাড়ির। আহতও হন বেশ কয়েকজন। এর পরেই স্থানীয়দের কাছ থেকে বাজি বা বাজির মশলা মজুতকারীদের নাম–ঠিকানা জানানোর আবেদন করে বীজপুর থানার পুলিশ। ব্যাপক তল্লাশি চালিয়ে দেবকের বহু অবৈধ কারখানা থেকে প্রচুর বাজি ও বাজির মশলা উদ্ধার করা হয়। ৯ তারিখ ছাইঘাটে গঙ্গার পাড়ে একসঙ্গে অনেক পরিমাণ বাজি ও মশলা মজুত করে নৈহাটি থানার পুলিশ ও বম্ব স্কোয়াড। সেগুলি নিষ্ক্রিয় করার চেষ্টা করতেই ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে। নদীর দু’‌পারের বহু মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হন। জানতে পেরেই নৈহাটির বিধায়ক পার্থ ভৌমিককে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িগুলি সারানোর কাজ শুরু হয়। কাজে গাফিলতি থাকার দায়ে সাসপেন্ড করা হয় নৈহাটি থানার আইসি অনুপম চক্রবর্তী ও বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াডের ২ আধিকারিককে। ঘটনার ৮ দিনের মাথায় শুক্রবার অসহায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের হাতে চেক তুলে দেওয়া হল।

ক্ষতিগ্রস্ত বাসিন্দার হাতে ক্ষতিপূরণের চেক তুলে দিচ্ছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। রয়েছেন পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা, বিধায়ক পার্থ ভৌমিক। শুক্রবার। ছবি:‌ ভবতোষ চক্রবর্তী

জনপ্রিয়

Back To Top