আজকালের প্রতিবেদন‌: ‘‌ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তর জনমুখী। দপ্তরে মানুষ নানান ধরনের অভিযোগ করেন। সেগুলো আমরা সমাধানের চেষ্টা করি। অনেক ক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।’‌ শুক্রবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে তিন দিনের ক্রেতা সুরক্ষা মেলার উদ্বোধন করে এ কথা বললেন ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের মন্ত্রী সাধন পান্ডে। তিনি বলেন, ‘মানুষের অভিযোগ জানানোর ব্যবস্থা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আমরা মানুষের অভিযোগ শুনি। কেন্দ্র এ সব বিষয়ে কোনও উদ্যোগ নেয় না। আমাদের সরকার ঠিক করেছে জেলা থেকে হোক বা কলকাতা থেকে, ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরে অভিযোগ এলে অভিযোগকারী ও যাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তাঁকে মীমাংসার চেষ্টা করা হবে। এর পরেও সমস্যা না মিটলে ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে তাঁরা যেতে পারবেন। ক্রেতা সুরক্ষা আদালতের বিচারপতিদের কাছে আমার আবেদন যে কোনও মামলা এক বছরের মধ্যে নিষ্পত্তির চেষ্টা করুন। তাহলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবেন।’‌
পাশাপাশি এদিন মন্ত্রী সাধন পান্ডে বলেন, ‘‌রেলের খাবার থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিষয়ে অভিযোগ জানানো যায় দপ্তরে। আইনজীবীর প্রয়োজন হয় না। আমরাই সহায়তা করি।’‌ রাজারহাটে ক্রেতা সুরক্ষা আদালতের সার্কিট বেঞ্চ হবে। মন্ত্রী প্রোমোটারদের প্রসঙ্গে বলেন, ‘‌টাকা নিয়ে ফ্ল্যাট না দিলে দপ্তরের আইন অনুযায়ী জেল হতে পারে।’‌ কাল, ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত মেলা চলবে। রাজ্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তর, বন্ধন ব্যাঙ্ক, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা স্টল দিয়েছেন এখানে। জিনিসপত্রের ওজন ঠিক আছে কিনা জানার জন্যও স্টল রয়েছে।
বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‌আমি মন্ত্রী সাধন পান্ডের কাছে অনেক অভিযোগ পাঠিয়েছি। অনেকে টাকা দিয়ে ফ্ল্যাট পাচ্ছেন না। এই দপ্তর গোটা রাজ্যে কাজ করছে। অনেকের অভিযোগের সমাধানও করেছে দপ্তর। মুখ্যমন্ত্রী মন্ত্রিসভার বৈঠকে বলেছেন, ভালভাবে সকলকে কাজ করতে হবে জনগণের জন্য। একই ওষুধ বিভিন্ন দামে বিক্রি হচ্ছে। এটা দপ্তর লক্ষ্য রাখছে। মুখ্যমন্ত্রী স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ওপর জোর দিয়েছেন। কারণ এই গোষ্ঠীগুলির হাতে যাতে অর্থ আসে। অথচ দেশের প্রধানমন্ত্রী কিছুই বুঝতে পারছেন না।’‌ তাঁর প্রশ্ন, দেশে এখন বিনিয়োগ কোথায়?‌ 
দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু বলেন, ‘‌অনেকে আগে এই দপ্তরের নাম জানতেনই না। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী প্রোমোটার মানুষকে ঠকাচ্ছে। ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়ে মানুষ ফ্ল্যাট কিনেছেন। টাকা পরিশোধও করেছেন। কিন্তু তাঁরা ফ্ল্যাট পাচ্ছেন না। এই অসাধু ব্যবসায়ী, প্রোমোটারদের ক্ষেত্রে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। জন সচেতনতা আগের থেকে অনেক বেড়েছে।’‌ 
শ্রমদপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী নির্মল মাজি বলেন, ‘হাওড়ার একটি সংস্থা থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ স্যালাইন এসেছিল। দপ্তর এই বিষয়টি দেখছে। কিছু ক্ষেত্রে মৃতপ্রায় ব্যক্তিকে ভেন্টিলেশনে রেখে হাসপাতাল বিল বাড়াচ্ছে বলে তাঁর অভিযোগ।  ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তর এই বিষয়গুলির দিকে নজর রাখছে।’‌
অনুষ্ঠানে দপ্তরের সচিব অত্রি ভট্টাচার্য, বাবুন ব্যানার্জি, প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ, রাইট টু পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মুখ্য কমিশনার অরূপ রায়চৌধুরি ছিলেন। অত্রি ভট্টাচার্য বলেন, ‘‌এই দপ্তরের কাজ মানুষকে সচেতন করা, সমস্যার প্রতিকার করা, জনপরিষেবা আইন সম্পর্কে ধ্যান ধারণা বাড়ানো।’‌ কলকাতার বিশপ পরিতোষ ক্যানিং বলেন, ‘‌এই দপ্তর সাধারণ মানুষের মুশকিল আসান করেছে। রাজ্য সরকারের কাছ থেকে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছি।‌’‌‌‌‌‌

উদ্বোধন মঞ্চে ক্রেতা সুরক্ষা দপ্তরের মন্ত্রী সাধন পান্ডে, মন্ত্রী সুজিত বসু, মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় ও মন্ত্রী ডাঃ নির্মল মাজি। নেতাজি ইনডোরে। শুক্রবার। ছবি:‌ বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top