আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বুলবুল বিধ্বস্ত বসিরহাটে প্রশাসনিক বৈঠক করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বুধবার ক্ষয়ক্ষতি মেটাতে একাধিক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। আকাশ পথে বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন নেত্রী। তারপর বৈঠকে তিনি বলেন, ‘‌মোট ১৫ লক্ষ হেক্টর জমি নষ্ট হয়েছে। ভেঙে গিয়েছে ৫ লক্ষেরও বেশি ঘরবাড়ি। কাজেই যত দ্রুত সম্ভব বাড়ি তৈরি দেওয়া হবে। পাম্পিংয়ের মাধ্যমে চাষের জমির জল বের করার চেষ্টা হবে। চাষীদের পাশে রয়েছে রাজ্য সরকার।’‌ এই আশ্বাস পেয়ে স্বাভাবিকভাবে মাথা থেকে চিন্তার মেঘ বেশ খানিকটা কেটে গিয়েছে গ্রামের সাধারণ মানুষের। করতালি দিয়ে তাঁরা সে কথা জানিয়েও দিয়েছে। 
তিনি এই অবস্থায় সবাইকে হাতে হাত রেখে দুর্গত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে আহ্বান করেন। মুখ্যমন্ত্রী জানান, ত্রাণের কাজে রাজনীতির কোনও রং যেন না লাগে। সব মানুষ যেন ত্রাণ পায় সেদিকেই নজর রাখতে হবে। দুর্গতদের কাছে ত্রাণ সামগ্রী দ্রুত পৌঁছে দিতে হবে। এরপর সমীক্ষা রিপোর্ট দেখে তিনি বলেন, ‘‌এখনও বহু এলাকায় জল জমে আছে। দুর্ঘটনা এড়াতেই বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। যে সমস্ত পরিবারের ছেলেমেয়েদের পরীক্ষা রয়েছে তাঁদের ৫ লিটার করে কেরোসিন এবং হ্যারিকেন দেওয়া হবে। বইখাতার ক্ষতি হয়ে থাকলে তাও কিনে দেবে শিক্ষা দপ্তর।’‌
এই নির্দেশ ও ঘোষণার পাশাপাশি মোবাইল ক্যাম্প করে চিকিৎসা করা হবে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। দুর্গত এলাকায় শুকনো খাবার, ওষুধ, ১২ কেজি করে চাল এবং বেবি ফুডও বিতরণ করা হবে। বনদপ্তরকে নতুন করে ম্যানগ্রোভ গাছ লাগানোর কথাও বলা হয়। দুর্বল নদীর বাঁধ দ্রুত সারানোর হবে বলেও আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top