চন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়, কাটোয়া, ৫ জুন- আজ, শনিবার দেশের বিভিন্ন রাজ্য থেকে ২১টি শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন আসছে কাটোয়া জংশনে। ট্রেনগুলি থেকে নামা পরিযায়ী শ্রমিকদের কীভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা হবে, কীভাবে তাঁদের নিজের নিজের গন্তব্যে ফেরানো হবে এমন সব আনুষঙ্গিক বিষয় নিয়ে একটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করলেন কাটোয়ার মহকুমাশাসক প্রশান্তরাজ শুক্ল। তিনি জানান, ‘পুলিশ, পুরসভা ও স্বাস্থ্য দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে পুরো বিষয়টি যাতে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়, সেই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ 
আলোচনায় উঠে এসেছে, ট্রেন থেকে নামার পর যাত্রীদের কোথায় রাখা হবে, খাবারের ব্যবস্থা, তাদের কোনও উপসর্গ রয়েছে কিনা তা কীভাবে দেখা হবে, নিজের নিজের জেলায় পাঠানো, স্থানীয়দের প্রয়োজনে কোয়ারেন্টিন সেন্টারে পাঠানো, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কীভাবে ঠিক রাখা হবে প্রভৃতি। সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলির সাহায্য চেয়ে লিখিত চিঠিও পাঠানো হয়েছে মহকুমা প্রশাসনের তরফে। রেল সূত্রের খবর, ভিনরাজ্য থেকে পরিযায়ীদের নিয়ে ট্রেনগুলি পূর্ব রেলের কাটোয়া, হাওড়া, ব্যান্ডেল স্টেশনগুলি দিয়ে যাবে। অবাঞ্ছিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় কাটোয়া স্টেশনে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হবে। কাটোয়ার পুরপ্রশাসক রবীন্দ্রনাথ চ্যাটার্জি বলেন, ‘স্টেশন থেকে যাত্রীদের প্রথমে কাটোয়া বাসস্ট্যান্ডের নবনির্মিত ভবনে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে  শারীরিক পরীক্ষার করে তাঁদের গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়া হবে বাসে।’ এলাকাটিকে জীবাণুমুক্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দমকলকে। কাটোয়া স্টেশন থেকেই ট্রেনেই অনেকে মুর্শিদাবাদ, মালদা–সহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় যাবেন। পরিষেবায় যাতে ন্যূনতম খামতি না থাকে সেজন্য সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। 
এমনিতে এ পর্যন্ত কাটোয়া মহকুমায় ২৮ জনের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। শ্রমিকরা ঢুকলে সেই সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা করছেন সাধারণ মানুষজন। তবে সংক্রমণ ঠেকাতে তৎপর প্রশাসন। দলে দলে জেলায় ঢোকা পরিযায়ী শ্রমিকদের পর্যবেক্ষণে রাখার জন্য হাজারের কাছাকাছি সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টার প্রস্তুত করা হল। দিল্লি, গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ ও তামিলনাড়ু থেকে আগত বাসিন্দাদের সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই সেন্টারগুলিতে নিয়ম করে স্বাস্থ্যপরীক্ষা হচ্ছে। মানসিক অবসাদ কাটানোর জন্য কালনা রোডে একটি মডেল কোয়ারেন্টিন সেন্টারও করা হচ্ছে। সেখানে টিভি, ওয়াইফাই সুবিধে থাকবে।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top