আজকালের প্রতিবেদন: দক্ষিণেশ্বর থেকে বালি, হাওড়া, কলকাতায় আসা–যাওয়ার জেটিটি আমফান আর কালবৈশাখীর গ্রাসে এক ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে। চিড় ধরেছে। যে কোনও মুহূর্তে গঙ্গাবক্ষে সেতি ভেঙে পড়তে পারে। সেই আশঙ্কা থেকেই জেটিটি বন্ধ রেখেছে প্রশাসন। স্থানীয় যুবক প্রশান্ত দাস জানালেন, জেটির পাশে একটি ঘর রয়েছে। সেখানে অঙ্গনওয়াড়ি ক্লাস হয়। লকডাউনে আপাতত বন্ধ। আমফান এবং কালবৈশাখীর জোড়া ঝড়ে সেই ঘরটি হেলে পড়েছে। আর তার জেরেই জেটিতে চিড় ধরতে শুরু করেছে। মনে হয় না জেটিটি টিকবে। সেই ঘর এবং জেটি বাঁচানোর চেষ্টা শুরু হয়েছে।
সরকারি নির্দেশে হুগলি জেলার অন্যান্য ঘাটে ফেরি পরিষেবা চালু হলেও রিষড়া ফেরিঘাট বন্ধ। আমফানের দাপটে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে রিষড়া ফেরিঘাটের। জেটি ভেঙে তছনছ হয়ে গেছে। ঘূর্ণিঝড়ে নোঙর উপড়ে ফেলে, গ্যাংওয়ে পল্টন ভেঙে নষ্ট হয়েছে। জলোচ্ছ্বাসে একটি লঞ্চ, একটি নৌকা এবং একটি ভেসেল গঙ্গায় তলিয়ে গেছে। ফলে এই মুহূর্তে ফেরি পরিষেবা চালু করা বিপজ্জনক। তবে মেরামত করার কাজও চলছে জোরকদমে। জেটি মেরামত করে ব্যবহারের উপযোগী করে তুলতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। রিষড়া–খড়দা ফেরি পরিষেবা চালু না হলেও কোন্নগর–পানিহাটি ফেরি পরিষেবা চালু হওয়ায় খুশি যাত্রীরা। দীর্ঘ লকডাউন চলছে। ট্রেন এখনও বন্ধ। জলপথ পরিবহণ চালু হওয়ায় কিছুটা হলেও সুবিধা হবে যাত্রীদের।

জনপ্রিয়

Back To Top