প্রভাত সরকার, ফরাক্কা: কাশ্মীরের কুলগামে জঙ্গিদের গুলিতে প্রাণ হারান মুর্শিদাবাদের পাঁচ শ্রমিক। সাগরদিঘির বাহালনগরের এই শ্রমিকদের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়েছিল গোটা রাজ্য। পরপর তিনটি গুলি লাগলেও কোনওরকমে প্রাণে বেঁচে যান জহিরুদ্দিন সরকার। কাশ্মীরের হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে আপাতত সুস্থ হয়েছেন তিনি। তঁাকে রাজ্য প্রশাসনের সহযোগিতায় বাড়ি নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দীর্ঘ চিকিৎসার পর একটু সুস্থ হতেই রাজ্যে ফিরছেন জহিরুদ্দিন। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বিমানবন্দর থেকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে তঁাকে। সেখানে ফের তঁার চিকিৎসা হবে। সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ার পর তঁাকে সাগরদিঘিতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে। 
কাশ্মীরে কাজ করতে গিয়ে নিহত হন পাঁচ শ্রমিক। তঁাদের মৃতদেহ বাড়িতে এলেও গুলিতে আহত হয়ে কোনওরকমে প্রাণে বেঁচে যান জহিরুদ্দিন। কাশ্মীরের কুলগামের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘির বাহালনগরের বাসিন্দা তিনি। ফোনে আহত জহিরুদ্দিনের স্ত্রী জানান, স্বামীর সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছে। তিনি আপাতত সুস্থ। জহিরুদ্দিন আবার স্ত্রীকে জানান, কাশ্মীরে খুব তুষারপাত হচ্ছে। মঙ্গলবার রাতেই মালদা টাউন–কাটিহার এক্সপ্রেসে উঠে কলকাতার উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন জহিরুদ্দিনের স্ত্রী পারমিতা খাতুন ও পরিবারের সদস্যরা। গত ২৯ শে অক্টোবর কাশ্মীরের কুলগামে জঙ্গিরা গুলি চালায় শ্রমিকদের ওপর। ‌‌‌‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top