প্রদীপ দে,বহরমপুর: বিজেপি–র মণ্ডল সভাপতি নিয়ে বুধবার বহরমপুরে দলীয় অফিসের সামনে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে হাতাহাতি হয়। তার জেরে বৃহস্পতিবার দলীয় অফিসের সামনে ধর্নায় বসেন বিজেপি–র একদল নেতা–কর্মী। এই ধর্নার নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপি–র রাজ্য মহিলা মোর্চার সদস্য অনামিকা ঘোষ। তিনি আবার বীরভূমের মহিলা মোর্চার পর্যবেক্ষক। বুধবার রাত থেকেই জেলা অফিসের সামনে শুরু হয় বিজেপি নেতা, নেত্রী ও কর্মীদের ধর্না অবস্থান।
অনামিকার অভিযোগ, ‘‌মণ্ডল সভাপতি নিয়োগ নিয়ে মারাত্মক দুর্নীতি হয়েছে। মোটা টাকায় বিনিময়ে পদ বিক্রি করা হয়েছে। মুর্শিদাবাদের দক্ষিণ জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর ঘোষের এতে পুরোপুরি মদত রয়েছে। বুধবার প্রতিবাদ করতে এসেছিলাম। কিন্তু আমাদের মারধর করা হয়। হুমকি দেওয়া হয়। এই ঘটনায় জেলা সভাপতির লোকজন জড়িত। প্রতিকার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের ধর্না চলবে। রাজ্য মহিলা মোর্চার নেত্রী তথা সাংসদ লকেট চ্যাটার্জিকে সব জানিয়েছি। তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।’‌
কেন এত গন্ডগোল?  বিজেপি সূত্রে জানা গেছে, মণ্ডল সভাপতিরা জেলা সভাপতি নিয়োগে বড় ভূমিকা নেন। মুর্শিদাবাদ দক্ষিণ জেলায় মোট ৫৫টি মণ্ডল রয়েছে। ইতিমধ্যে ৪৬টি পদের সভাপতির নাম গত মঙ্গলবার ঘোষণা করা হয়। আর তার পর থেকেই শুরু হয়েছে ব্যাপক গোষ্ঠীকোন্দল। বুধবার যখন জেলা অফিসে বিক্ষোভ শুরু হয়, তখন জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর ঘোষ নবনিযুক্ত ৪৬ জন মণ্ডল সভাপতি ও আরও ৫০ জন বুথ সভাপতিকে নিয়ে লালবাগে বৈঠক করেন। জেলা সভাপতি কে হবেন, তা নিয়ে বৈঠক হয় সেখানে।
ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে বিজেপি–র জেলা সভাপতি নির্বাচিত হবেন। বিজেপি–র মহিলা নেত্রী অনামিকা বলেন, ‘‌মণ্ডল সভাপতি হতে গেলে কমপক্ষে তিন বছরের দলীয় অভিজ্ঞতা থাকা দরকার। কিন্তু অনেক জায়গায় মণ্ডল সভাপতি করা হয়েছে যারা দু’‌দিন হল অন্য দল থেকে এসেছেন। দলের কোনও কাজ তঁারা করেননি। অথচ পদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এসব আমরা মানব না। দলের শুদ্ধিকরণের জন্য আমরা ধর্নায় বসেছি। জেলা সভাপতি যতক্ষণ আমাদের কাছে এসে কথা না বলবেন, ততক্ষণ ধর্না–অবস্থান চলবে।’‌ যদিও বিজেপি–র জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর ঘোষ মোটেই এই ধর্নাকে গুরুত্ব দিতে চাননি। তিনি বলেন, ‘‌ওখানে যা হচ্ছে, তা দুই মহিলা নেত্রীর ঝামেলা। দলের সঙ্গে তার কোনও সম্পর্ক নেই। এই ঘটনায় দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। আমি দিলীপদাকে সব জানিয়েছি।’‌ বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা অফিসের সামনে গিয়ে দেখা যায়, অফিসের প্রধান দরজার সামনে অনামিকা–সহ দলের অন্য নেতা–কর্মীরা আছেন। মাঝে চলছে স্লোগান।

বহরমপুরে বিজেপি–র জেলা কার্যালয়ের সামনে ধর্না ও বিক্ষোভে দলীয় নেতা–নেত্রী ও কর্মীরা। ছবি:‌ চয়ন মজুমদার

জনপ্রিয়

Back To Top