যজ্ঞেশ্বর জানা, দিঘা: আষাঢ় মানেই যে ইলিশ ধরার মরশুম। কিন্তু এবার আষাঢ় পেরিয়ে শ্রাবণ এলেও দেখা মিলছে না তার। আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনাকেই এজন্য দায়ী করছেন মৎস্যজীবীরা। অনাবৃষ্টির জন্যই অধরা ইলিশ, বলছেন তঁারা। গত বছর ঠিক এই সময়ে রুপোলি ইলিশে বাজার ভরলেও এবারের চিত্রটা পুরোপুরি উল্টো। ইলিশের মরশুমেও ইলিশ ধরতে না পারার জন্য আশাহত মৎস্যজীবীরা। মন খারাপ ভোজন রসিক বাঙালিরও। 
সামুদ্রিক ঝঞ্ঝা কাটিয়ে দিনপঁাচেক আগে দিঘা, শঙ্করপুর, পেটুয়া, শৌলার মৎস্যজীবীরা ফের সমুদ্রে ট্রলার ভাসিয়েছিলেন। শনিবার পর্যন্ত একে একে ফিরেছে ৪০০ লঞ্চ–ট্রলার। কিন্তু জালে ধরা পড়েনি ইলিশ। তবে এবার আর শূন্য হাতে ফিরতে হয়নি তাদের। ৪০০ লঞ্চ–ট্রলার মিলিয়ে ইলিশ বাদে প্রায় ৮০০ টন অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ নিয়ে ফিরেছে। আর এতেই কিছুটা হলেও হতাশামুক্ত হতে পেরেছেন লঞ্চ–ট্রলারের মালিক, আড়ৎদার থেকে শুরু করে সাধারণ মৎস্যজীবীরা। নিয়মমাফিক নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে গত ১৫ জুন থেকেই শঙ্করপুর, দিঘা, পেটুয়া, শৌলা থেকে ৪ হাজার লঞ্চ–ট্রলার পাড়ি দিয়েছিল গভীর সমুদ্রে মৎস্য শিকারে। প্রথম ৫–৭ দিনের ট্রিপে খুব কম পরিমাণ মাছ ধরে ফিরেছিলেন মৎস্যজীবীরা। কিন্তু তার পর থেকেই সমুদ্রে নিম্নচাপে আরও প্রতিকূল হয়ে ওঠায় টানা ১৫ দিন শিকেয় ওঠে মাছ ধরা। কিন্তু তার পরের সমুদ্রযাত্রাতেও নাগালের বাইরে রইল ইলিশ।
মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ইলিশ মাছের মরশুম পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। সেই কারণেই এই শ্রাবণেও ইলিশ জালে উঠছে না। তাদের মতে, এতে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। তবে ইলিশ কবে জালে উঠবে, তা নিয়ে রীতিমতো সন্দিহান মৎস্যজীবীরা। দিঘা ফিশারম্যান অ্যান্ড ফিশ ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের অন্যতম কার্যকর্তা নবকুমার পয়ড়্যা বলেন, ‘‌সারা বছর মাছ ধরলেও বর্ষার সময় ইলিশ ওঠার ওপরেই নির্ভর করে বেশিরভাগ মৎস্যজীবীর জীবনজীবিকা। কিন্তু এবার আষাঢ় গিয়ে শ্রাবণ এলেও পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়নি এতটুকুও। কারণ বৃষ্টি নেই। এই সময় যে পরিমাণ ইলিশ পাওয়া যায়, এবারে তার এক তৃতীয়াংশও ধরা পড়ছে না।’‌ 
আড়ৎদার পূর্ণেন্দু দাস বলেন, ‘‌ইলিশ ছাড়া অন্য মাছ ধরে আর কতটুকু কী হয়!‌ কিন্তু এবার শুরু থেকেই ইলিশের খরা।’‌ তবে আশার কথা শুনিয়েছেন কঁাথির সহ–মৎস্য অধিকর্তা (সামুদ্রিক) সুরজিৎ বাগ। তিনি বলেন, ‘‌হতাশ হওয়ার কিছু নেই। মৎস্যজীবীদের জালে যে একদমই মাছ ধরা পড়ছে না, তা কিন্তু নয়। বর্ষা শুরু না হওয়ার কারণে ইলিশের ঝঁাক আসার সময়সীমা পরিবর্তন হয়েছে। আগস্টের দিকে ইলিশ ধরা পড়তে পারে।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top