গৌতম চক্রবর্তী: শত দুঃখের মধ্যেও আজ গর্বিত সোনারপুরের দেবলীনা ঘোষের পরিবার। মেয়ে হারানোর দুঃখ কোথাও যেন কিছুটা হলেও কম অনুভব করছে মৃত দেবলীনার পরিবার। তাঁদের মেয়ে তো বেঁচে থাকছে অন্যের মধ্যে, এটা ভেবেই তাঁরা দুঃখ ভুলতে চাইছেন। দেবলীনার দুটি কিডনি, হার্ট প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। খবর আসে, সফল ভাবে প্রতিস্থাপিত হয়েছে অরুণ ও কৃষ্ণা ঘোষের একমাত্র মেয়ের অঙ্গ। রাজপুর শ্মশানে শেষকৃত্য হয়। কিন্তু তার আগেই বুধবার রাতে বাড়ির বহু পুরনো কালীপুজোর প্রতিমা নিরঞ্জন করে দেয় ঘোষ পরিবার। ছোটবেলায় টানা আড়াই মাস অসুস্থ থাকার পর দেবলীনার নার্ভের অসুখ দেখা দিয়েছিল। মস্তিষ্কের জটিল অসুখ কনজেনিটাল হাইড্রোসেফালাসে ভুগছিলেন। মস্তিষ্কের অতিরিক্ত জল বের করার জন্য আড়াই বছর আগে মাথায় নলের মতো ভিপি শান্ট বসানো হয়েছিল। 
দেবলীনার বাবা অরুণ ঘোষ জানান, ‌গত রবিবার সেই নলটি আর কাজ করছিল না। দেবলীনা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে। নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকুরিয়ার আমরি হাসপাতালে। কোনও মূমূর্ষু রোগী মেয়ের অঙ্গে নবজীবন পাবে, সেই আনন্দ বুকে নিয়েই বেঁচে থাকতে চান তাঁরা। কৃষ্ণাদেবী বলেন, ‘আগে মেয়ে অন্যের সাহায্য ছাড়া চলাফেরা করতে পারত না। কারণ ও বিশেষ ভাবে সক্ষম। এখন অন্য কেউ মেয়ের অঙ্গ নিয়ে বেঁচে থাকবে। মায়ের কাছে এর থেকে গর্বের আর কী হতে পারে!‌’ 

জনপ্রিয়

Back To Top