সোহম সেনগুপ্ত: বারাসতে জেলাশাসকের কাছে চিঠি লিখে স্বেচ্ছায় মৃত্যুর আবেদনকারী একই পরিবারের তিনজনের চিকিৎসার ব্যবস্থা করল বারাসত জেলা হাসপাতাল। রবিবার বিকেলে বারাসতের মহকুমা শাসক তাপস বিশ্বাস ও  জেলা হাসপাতালের সুপার ডাঃ সুব্রত মণ্ডল বারাসত নবপল্লী বাণীনিকেতন রোড সংলগ্ন একটি আবাসনের বাসিন্দা গার্গী ব্যানার্জি ও তাঁর মা গীতাদেবী ও বাবা কমলবাবুর সঙ্গে দেখা করেন। তাঁদের ফ্ল্যাটেই এদিন ওই পরিবারের তিন সদস্যের শারীরিক পরীক্ষা–নিরীক্ষাও করেন। ডাঃ সুব্রত মণ্ডল জানান প্রাথমিকভাবে তাঁদের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেছেন। প্রয়োজনীয় ওষুধও দিয়েছেন। বুধবার বারাসত হাসপাতালে তাঁদের যাবতীয় শারীরিক পরীক্ষা করা হবে বলেও জানান তিনি। জেলা হাসপাতালের সুপার বাড়িতে এসে তাঁদের চিকিৎসা করায় খুশি গার্গী ব্যানার্জি ও তাঁর বাবা–মা। গার্গী জানান, যেভাবে প্রশাসন, সমাজসেবী মুকুল চ্যাটার্জি–সহ বহু মানুষ তাঁদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন তাতে তিনি আপ্লুত। উল্লেখ্য, শনিবার চাল, ডাল, আটা–সহ বিভিন্ন খাদ্যশস্য নিয়ে তাঁদের বাড়িতে যান দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মুকুল চ্যাটার্জি। সারা বছর তাঁদের পাশে থাকার আশ্বাসও দেন। খাদ্য দপ্তরের জেলা কার্যালয় থেকে এক প্রতিনিধিদলও ওই পরিবারের সঙ্গে করে এদিন। ওই প্রতিনিধিরা তাঁদের আশ্বস্ত করে জানান, তাঁরা যাতে পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য পান তার ব্যবস্থা করা হবে।‌ পাশাপাশি জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তীর নির্দেশে এক প্রতিনিধিদল ওই পরিবারের সঙ্গে দেখা করে আর্থিক সাহায্যও করে।  মহকুমা শাসক তাপস বিশ্বাস জানান, সবরকমভাবে ওই পরিবারের পাশে আছেন তাঁরা। ইতিমধ্যেই কানাডা, বেঙ্গালুরু–সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে বেশ কয়েকজন ওই পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছেন।

জনপ্রিয়

Back To Top