আজকালের প্রতিবেদন, গঙ্গাসাগর: এবারের গঙ্গাসাগর মেলায় জন্ম নিল ৪০টি শিশু। শিশুদের নামকরণও করা হল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। প্রথম যে পুত্রসন্তানের জন্ম হয়েছিল, তার নাম রাখা হয়েছে সাগর। মেলার শেষ দিনে জন্ম নেওয়া এক কন্যাসন্তানের নাম রাখা হয়েছে গঙ্গা। এছাড়াও এক কন্যাসন্তানের নাম রাখা হয়েছে সাগরী। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছিলেন, ‌এই গঙ্গাসাগরের মধ্যেই ৪০ জন নতুন শিশু জন্মেছে। জন্মানো শিশুদের নিয়ে মায়েরা আনন্দে ফিরে যাচ্ছেন। 
মেলার মধ্যে নবজাতক পেয়ে খুশি মায়েরাও। একসময় নিঃসন্তান মহিলার সন্তানের আশায় কপিলমুনির কাছে পুজো দিতে আসতেন। আর সেই মেলার মধ্যে সন্তান পেয়ে কপিলমুনির আশীর্বাদ হিসেবে ধরে নিচ্ছেন অনেক মায়েরা। এঁদের মধ্যে পুণ্যলাভের আশায় এসে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন অনেকেই। মেলার মধ্যে শিশুর জন্মে সকলেই আনন্দিত। যেমন পিউ দাস। মেলার জন্য সাগরে এসেছিলেন। মুর্শিদাবাদ এলাকায় তাঁর বাড়ি। প্রসব যন্ত্রণা শুরু হতেই ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। সেখানে সন্তানের জন্ম দেন। এছাড়া মামণি মণ্ডল, মৌসুমি খাটুয়ারাও সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। প্রত্যেক মা সরকারি ব্যবস্থাপনা নিয়ে খুশি। হাসপাতালের বেডে শুয়ে পিউ দাস বলেন, ‘‌এসেছিলাম পুণ্যলাভের আশায়। কিন্তু প্রসব যন্ত্রণা শুরু হয়ে গেল। পরে হাসপাতালে ভর্তি হই। পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছি।’‌ 
আবার লক্ষ লক্ষ মানুষের চাপে এই সময় প্রসূতিদের নিয়ে চিন্তায় থাকেন সাগর ব্লকের বাসিন্দারা। বিশেষ করে যানবাহনের সমস্যা হয়। অনেক সময় নদী পার হতেও সমস্যা হয়। কিন্তু মেলার দিনগুলিতে প্রসূতি মায়েদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা ছিল সাগর ব্লক হাসপাতালে। যেখানে মায়েরা নিশ্চিন্তে নবজাতকের জন্ম দিয়েছেন। পুরো ব্যবস্থাপনায় খুশি মায়েরা। সাগর ব্লক হাসপাতালে গড়ে মাসে ৫০ জনের বেশি প্রাতিষ্ঠানিক প্রসব হয়। কিন্তু সুন্দরবনের এই প্রত্যন্ত দ্বীপে সাগরমেলার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। আশা কর্মীরাও সতর্ক ছিলেন। কোন আসন্নপ্রসবা মায়েদের সংবাদ পেলেই আগেভাগে ভর্তি করা হয়েছিল হাসপাতালে। সে কারণে প্রত্যেক মা সুস্থ–‌সবল সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। জেলাশাসক পি উলগানাথন বলেন, ‘প্রত্যেকটি শিশুই সুস্থ সবল হয়ে জন্মেছে। নিয়মিত নজর রাখা হচ্ছে প্রত্যেক শিশু ও মায়েদের ওপর। সুস্থ হলে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করবে প্রশাসন।’

 

নবজাতক কোলে এক মা। সাগর ব্লক হাসপাতালে। ছবি:‌ প্রতিবেদক‌

জনপ্রিয়

Back To Top