আজকালের প্রতিবেদন, বনগাঁ: ফেসবুকে মাত্র কয়েক দিনের আলাপ। আর সেই আলাপের মাধ্যমে গড়ে ওঠে প্রেম। সেই প্রেমের টানে এরপর বাড়ি ছেড়ে একশো কিলোমিটার দূরে অচেনা প্রেমিকের কাছে হাজির হয়ে গেল নাবালিকা প্রেমিকা। পুলিসের সাহায্যে শেষপর্যন্ত প্রেমিকের বাড়ি থেকে প্রেমিকাকে উদ্ধার করল পুলিস। নাবালিকাকে ফুঁসলিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে প্রেমিককে। যদিও আদালতে তোলার পর জামিন পেয়ে যায় প্রেমিক। উত্তর ২৪ পরগনার গোপালনগর থানা এলাকার এই ঘটনায় ওই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
গোপালনগর থানার সহিসপুর এলাকার বছর ১৭ বয়সের নাবালিকা নদীয়ার রানাঘাট কলেজের প্রথমবর্ষের ছাত্রী। দিন ১৫ আগে ফেসবুকের মাধ্যমে মুর্শিদাবাদের ফরাক্কা এলাকার যুবক বিট্টু পরামানিকের সঙ্গে আলাপ হয়। বিট্টুর বাবার একটি সেলুনের দোকান আছে। সেখানে সেও বসে। ফেসবুকের মাধ্যমেই এরপর তাদের দু’‌জনের বিভিন্ন বার্তা আদান–প্রদান হতে থাকে। আর তারফলেই মাত্র কয়েকদিনের আলাপেই অচেনা ওই যুবকের প্রেমে পড়ে যায় নাবালিকা। এরপর সেই প্রেমের টানেই প্রেমিকের কথাতেই দিন দুয়েক আগে কলেজে যাওয়ার নাম করে হঠাৎই বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায় প্রেমিকা। বাড়ি না ফেরায় অবশেষে গোপালনগর থানায় নিখোঁজের ডায়েরি করেন তার পরিবারের লোকেরা। এরপর তদন্তে নামে পুলিস। 
পরিবারের লোকেরা পুলিসকে জানিয়েছেন, তাঁদের মেয়ে গভীর রাত পর্যন্ত মোবাইল ফোন নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করত। সেই ফোনের সূত্র ধরেই পুলিস প্রথমে বিট্টু পরামানিক নামে নাবালিকার প্রেমিকের সন্ধান পায়। তার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে তার মোবাইল নম্বরও জোগাড় করে ফেলে পুলিস। সেই ফোনের সূত্র ধরে পুলিস তার ফরাক্কার বাড়ির ঠিকানা জোগাড় করে ফেলে। এরপর গোপালনগর থানার পুলিস ফরাক্কার বাড়িতে হানা দিলে সেখান থেকে উদ্ধার হয় নাবালিকা প্রেমিকা। পাশাপাশি গ্রেপ্তার করে আনা হয় প্রেমিক বিট্টুকে। 

 

ধৃত প্রেমিক বিট্টু। ছবি: নিরুপম সাহা

জনপ্রিয়

Back To Top