চন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়, বোলপুর, ১৬ এপ্রিল- বিশ্বভারতীর সর্বোচ্চ সম্মান ‘দেশিকোত্তম’ পেতে চলেছেন অমিতাভ বচ্চন, গুলজার, যোগেন চৌধুরি–সহ ৭ জন প্রখ্যাত ব্যক্তি। আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমি কাউন্সিলের বৈঠকে এই নাম চূড়ান্ত হয়। নাম ঠিক হয়েছে অবন–গগন পুরস্কার ও রথীন্দ্র পুরস্কারের জন্যও। মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বিশ্বভারতীর সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। সমাবর্তনে যোগ দেওয়ার বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। 
তারপরেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন নিয়ে যাবতীয় প্রস্তুতি শুরু করে দেওয়া হয়। বিশ্বভারতীর দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপিকা সবুজকলি সেন বলেন, ‘‌আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমি কাউন্সিলের বৈঠকে দেশিকোত্তম সম্মানের জন্য ৭ জনের নাম, অবন–গগন পুরস্কারের জন্য ৩ জনের ও রথীন্দ্র পুরস্কারের জন্য ৪ জনের নাম চূড়ান্ত হয়েছে। নিয়ম অনুসারে কর্মসমিতির বৈঠকে এই নামগুলো অনুমোদন করে আমরা আচার্যকে পাঠাব তাঁর সম্মতির জন্য। তারপরেই সমাবর্তনে তাঁদের হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হবে।’‌ তিনি জানান, ‘‌দেশিকোত্তম সম্মানের জন্য নাম ঠিক হয়েছে অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন, গুলজার, অধ্যাপক সুনীতিকুমার পাঠক, লেখক অমিতাভ ঘোষ, সঙ্গীতশিল্পী দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়, পদার্থবিদ অশোক সেন ও শিল্পী যোগেন চৌধুরি। শিল্পক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য অবন–গগন পুরস্কারের জন্য সুষেণন্দ্রনাথ ঘোষ, সুধীর পটবর্ধন ও পার্থপ্রতিম দেবের নাম চূড়ান্ত হয়েছে। রথীন্দ্র পুরস্কারের জন্য রাজেশ ট্যান্ডন, বিনায়ক লোহানি, অমলেশ চৌধুরি ও এল কে মণ্ডলের নাম ঠিক হয়েছে। 
২০০৮ সালের ডিসেম্বর মাসে আচার্য হিসেবে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ড.‌ মনমোহন সিংহ বিশ্বভারতীর সমাবর্তনে যোগ দিয়েছিলেন এবং ২০১৩ সালের জুলাই মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিদর্শক হিসেবে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি সমাবর্তনে যোগ দেন। ২০১৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিশ্বভারতীতে আসার ব্যাপারে সম্মতি জানালেও প্রায় শেষ মুহূর্তে সেই সফর বাতিল হয়ে যায়। ফলে এবার আর তেমন কোনও ঘটনা যেন না ঘটে সেদিকে বিশেষ নজর রাখছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য সফর ও সমাবর্তন নিয়ে এখন যুদ্ধকালীন ব্যস্ততা গোটা বিশ্বভারতী ঘিরে। সব কাজ তাড়াতাড়ি সম্পূর্ণ করতে চাইছেন বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। সেই কাজে বিশ্বভারতীকে জানা–বোঝা উপাচার্য যে এখানে কতটা প্রয়োজন তা এই অল্প কিছুদিনের মধ্যেই বুঝিয়ে দিয়েছেন অস্থায়ী উপাচার্য তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী অধ্যাপিকা সবুজকলি সেন। বিশ্বভারতীর তরফে তিনি নিজেই ব্যক্তিগত উদ্যোগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রিন্সিপাল সেক্রেটারির সঙ্গে কথা বলে সমাবর্তন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সফর সুনিশ্চিত করেন তিনি।‌

জনপ্রিয়

Back To Top