আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ অবশেষে স্থলভাগে আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। ইতিমধ্যে এর প্রভাব পড়েছে দুই ২৪ পরগণা, কলকাতা–সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সমস্ত জেলাতেই। সাগরদ্বীপ–বকখালির মাঝখানে বর্তমানে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। ঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার। তবে সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৪৫ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। প্রবল বেগে ঝড় বইছে সাগরদ্বীপ এলাকায়। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্তও হয়েছে। কয়েকটি বাড়ির চালও উড়ে গিয়েছে। গাছও ভেঙে পড়েছে কয়েকটি জায়গায়। পশ্চিম মেদিনীপুরের খেজুরি, নন্দীগ্রাম, নয়াচর ব্লক বুলবুল-এর তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে খবর। তবে পরিস্থিতি এখনও আয়ত্ত্বের মধ্যে বলে জানা যাচ্ছে প্রশাসন সূত্রে। বিভিন্ন জায়গায় তৈরি রাখা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলাকারী দলকে। তৈরি পুলিশও। 
আবহাওয়া অফিস সূত্রে খবর, শনিবার গোটা রাত তাণ্ডব চালাবে বুলবুল। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং উত্তর ২৪ পরগণার উপকূলবর্তী এলাকা। যেমন– হাসনাবাদ, কাকদ্বীপ, বকখালি, সাগরদ্বীপ। পরিস্থিতির দিকে নজর রাখতে ২৪ ঘণ্টার জন্য কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে নবান্নে। সেখানে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। নজর রাখছেন পরিস্থিতির দিকে। এছাড়া খোলা হয়েছে হেল্প লাইন নম্বরও। সেই দু’‌টি হল– ২২১৪৩৫২৬ ও ২২১৪৩৫৮৬। এছাড়াও চালু হয়েছে টোল ফ্রি নম্বর ১০৭০। এর মধ্যেই রাতে সংবাদমাধ্যমকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘‌১ লক্ষ ৬৪ হাজার জনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ত্রাণ শিবির খোলা হয়েছে ৩১৮টি। এছাড়া একটি ক্রুজে ৭০ জন যাত্রী ছিলেন। ওরা জানত না ঘূর্ণিঝড়ে ব্যাপারে। তারপরই প্রশাসনের তরফ থেকে ওঁদের নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ের তাণ্ডব থামলে রবিবার পুরো ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখা হবে। ড্রোনের সাহায্যও নেওয়া হবে। এছাড়া রামনগর, কাঁথি–সহ বেশ কিছু জায়গাতেও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব রাতের দিকে কমে যাবে। তবে যতক্ষণ পর্যন্ত আক্রান্ত মানুষরা বাড়ি ফিরতে পারছেন। ততক্ষণ তাঁদের পাশে রয়েছে সরকার। তাঁদের সবরকমভাবে সাহায্য করা হবে।’
এদিকে, ইতিমধ্যে দিঘা এবং উপকূলবর্তী এলাকাতেও প্রভাব পড়েছে বুলবুলের। পূর্ব মেদিনীপুরে প্রবল ঝোড়ো হাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ একাধিক বাড়ি। উড়ে গিয়েছে বাড়ির চাল। ভেঙে পড়েছে বেশ কয়েকটি বাড়ি। এমনটাই জানিয়েছেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন বিপর্যয় মোকাবিলাকারী দল। পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছেন খোদ মন্ত্রীও। 
তবে শুধু উপকূলবর্তী এলাকায় নয়, বুলবুলের প্রভাব পড়েছে কলকাতাতেও। ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বইছে ঝোড়ো হাওয়া। বুলবুলের প্রভাবে বৃষ্টির কারণে ভিআইপি–সহ বেশ কিছু জায়গায় জল জমেছে। গঙ্গাতেও বেড়েছে জলস্তর। এদিকে, বেশ কিছু জায়গায় ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয়েছে বলে খবর। দক্ষিণ–পূর্ব রেলের তরফ থেকে কয়েকটি ট্রেন শনিবার এবং রবিবারের জন্য বাতিলও করা হয়েছে। এদিকে, বালিগঞ্জে গাছ পড়ে এক যুবকের মৃত্যুর খবর মিলেছে। মৃতের নাম সোহেল শেখ। বয়স ২৫ বছর। জানা গিয়েছে, বালিগঞ্জের একটি ক্লাবে রান্নার কাজ করতেন শেখ সোহেল। আদতে বিহারের বাসিন্দা। এখানে ট্যাংরায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে ছিলেন তিনি। কাজে যোগ দিতে দুপুরে ক্লাবে পৌঁছন তিনি। সেইসময় ক্লাবে ঢোকার সময়ই বিপত্তি ঘটে। ক্লাব চত্বরে থাকা একটি গাছ ভেঙে পড়ে তাঁর উপর। মাথায় গভীর চোট পান তিনি। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় শেখ সোহেলের। 

 

 

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। রয়েছেন বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী জাভেদ খান। শনিবার। ছবি: তপন মুখার্জি

জনপ্রিয়

Back To Top