আজকালের প্রতিবেদন

করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার বিহার সার্কেলের এক এজিএম–এর। তিনি দেওঘরে দায়িত্বে ছিলেন। আদি বাড়ি শিলিগুড়িতে। কয়েকদিন আগে তিনি করোনা আক্রান্ত হন। ভর্তি ছিলেন বেলভিউ নার্সিংহোমে। বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়। এদিকে, বদলি করা হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ তপন সাহাকে। বৃহস্পতিবার তিনি জানান, তাঁকে অন্যত্র বদলির চিঠি তিনি পেয়েছেন। জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের একাংশের ধারণা, সম্প্রতি উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার জন্যই হয়তো তাঁকে বদলি করা হয়েছে। যদিও স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এটি রুটিন বদলি। প্রসঙ্গত, উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় রাজ্যের মধ্যে সব থেকে বেশি ৯৫টি কন্টেনমেন্ট জোন চিহ্নিত হয়েছে। 
এদিকে, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় আরও বেশি করে টেস্টের ওপর জোর দিচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর। জুলাইয়ে আক্রান্তের সংখ্যা যে বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় আরও সচেতন থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। আনলক হতেই বহু জায়গায় মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব দেখা গেছে। কেউ কেউ হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার বিধিনিষেধ মানেনি বলেও অভিযোগ এসেছে স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছে।
এদিন স্বাস্থ্য দপ্তরের বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ হাজার ৮৮ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ৯১১ জন। বর্তমানে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ২৩১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ জনের। রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৮৫৪ জন। তবে আশার আলো রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৩৫ জন করোনা–মুক্ত হয়েছেন। সব মিলিয়ে মোট সংক্রমণ–‌মুক্ত হয়েছেন ১৬ হাজার ৮২৬ জন। সুস্থতার হার ৬৪.‌৯৩ শতাংশ। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ৫ লক্ষ ৮৩ হাজার ৩২৮টি।
কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। বৃহস্পতিবারের বুলেটিন অনুযায়ী এদিন নতুন আক্রান্তের সংখ্যা কলকাতায় ৩২২, উত্তর ২৪ পরগনা ২৬৪, হাওড়া ১৬৭, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ৮৮, হুগলিতে ৫৩ জন। এছাড়াও আরও একাধিক জেলা থেকে আক্রান্ত হয়েছেন। এদিন যে ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে তার মধ্যে শুধু কলকাতার ১৩ জন বাসিন্দা রয়েছেন। বাকিরা অন্য জেলার।
করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকার সবদিক থেকে লড়াই করছে। এদিন ফুলেশ্বরের সঞ্জীবন হাসপাতালে কোভিড রোগীদের জন্য ৩০০ থেকে শয্যা বাড়িয়ে ৫০০ করা হয়েছে। হাওড়ার নারায়ণা হাসপাতালের পুরনো বিল্ডিংকে ১০০ শয্যার লেভেল ফোর কোভিড হাসপাতাল করার বিজ্ঞপ্তি দিয়ে স্বাস্থ্য দপ্তর। এদিকে, করোনায় আক্রান্ত হলেন সামশেরগঞ্জের ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক। এদিন জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সামশেরগঞ্জের বিএমওএইচ করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তাঁকে হোম আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। প্রসঙ্গত, রতনপুর এলাকায় একই পরিবারের পাঁচজন করোনা আক্রান্ত হন। বুধবার রাতেই সামশেরগঞ্জের রতনপুর ও ধূলিয়ান পুরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডকে কন্টেনমেন্ট জোন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। পাশাপাশি ব্লকের আরও পাঁচটি এলাকাকে বাফার জোন হিসাবে ঘোষণা করা হয়।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top