অনুপম বন্দ্যোপাধ্যায়, কাঁকড়তলা, ১০ সেপ্টেম্বর- বিস্ফোরণে ভেঙে পড়ল তৃণমূলের অঞ্চল কার্যালয়। সোমবার সকালে বীরভূমের কাঁকড়তলা থানার বড়রা গ্রামে। বিস্ফোরণের সময় কার্যালয়ে কেউ না থাকায় কোনও হতাহতের খবর নেই। ঝাড়খণ্ড থেকে দুষ্কৃতীদের নিয়ে এসে বিজেপি তাঁদের এই পার্টি অফিস বোমা দিয়ে উড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। 
বন্‌ধের দিনে বিস্ফোরণের শব্দে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে খয়রাশোলে। সোমবার সকাল ১০টা নাগাদ প্রচণ্ড বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে বড়রা গ্রাম। বিকট আওয়াজ শুনে গ্রামের বহু মানুষ আতঙ্কে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসেন। গ্রামবাসীরা জানান, বাইরে বেরিয়ে এসে তাঁরা দেখেন, বিস্ফোরণে ভেঙে গেছে তৃণমূলের কার্যালয়। দু’‌দিকের কংক্রিটের দেওয়াল ও ছাদ ভেঙে একেবারে চুরমার। পুলিস কার্যালয়ের ভেতর ও বাইরে থেকে বিস্ফোরকের নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যায়। 
২০১২ সালে দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হওয়া বড়রা গ্রামের তৃণমূল নেতা গোলাম সাবের কাদেরি ওরফে বুড়োর স্মৃতিতে এই দলীয় কার্যালয়টি তৈরি হয়। কিন্তু কিছুদিন আগে এই কার্যালয়ে গোলাম সাবের কাদেরির নাম তুলে দেয় দুষ্কৃতীরা। গোলাম সাবেরের ভাই উজ্জ্বল কাদেরি এখন খয়রাশোল ব্লক তৃণমূল কার্যকরী সভাপতি। কিন্তু তিনি জানান, দলের পক্ষ থেকে ব্লকের বড় দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে এই অঞ্চল কার্যালয়ে তিনি এখন বসেন না।  সম্প্রতি এই কার্যালয়ে নিয়মিত বসতেন দলের স্থানীয় নেতা শেখ আফজার ওরফে কালো। কার্যালয়ের বাইরের দেওয়ালে তাঁর নাম ও ফোন নম্বরও লেখা আছে।  দলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের অভিযোগ, ঝাড়খণ্ড লাগোয়া এই গ্রামে তাঁদের অঞ্চল কার্যালয়টি বোমা মেরে উড়িয়েছে বিজেপি। আগেও তারা চেষ্টা করেছিল, কিন্তু সফল হয়নি। এর উত্তরে বিজেপি জেলা সভাপতি রামকৃষ্ণ রায় বলেন, ‘‌নিজেদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আড়াল করতে তৃণমূল আমাদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে।’‌ 

বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত বীরভূমে তৃণমূেলর কার্যালয়। ছবি: শান্তনু দাস

জনপ্রিয়

Back To Top