আজকালের প্রতিবেদন: ৩০ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইয়ের পর মারা গেলেন পার্ক স্ট্রিটের একটি নার্সিংহোমের ল্যাব কর্মী বিভূতি ঘোষ। তিনি বাইক ছিনতাইকারীদের গুলিতে জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তাঁর মৃত্যুসংবাদে তীব্র অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে কাঁকিনাড়া পানপুর কুতুবপুর এলাকায়। শোকে ভেঙে পড়েছেন বিভূতির স্ত্রী, ছেলে ও আত্মীয়–‌পরিজনেরা। ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেপ্তার না হওয়ায় চাপা উত্তেজনা রয়েছে এলাকায়। বিভূতি  রবিবার রাতে তাঁর নতুন বাইকে বাড়ি ফিরছিলেন। পানপুরে দুষ্কৃতীরা তাঁর পথ আটকায়। তাঁর মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেয়। পরে মোবাইলটি ফেলে দেয়। মোবাইলের সূত্র ধরে ধরা পড়ার ভয়ে। এরপর তাঁর নতুন বাইকটি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে বিভূতি প্রাণপণ বাধা দেয়। বাধা পেয়ে এক দুষ্কৃতী পরপর দুটি গুলি চালায়। একটি গুলি তাঁর পেটে লাগে। বিভূতিকে মাটিতে লুটিয়ে পড়তে দেখে দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যায। এক যুবক বিভূতির বাড়িতে খবর দেয়। বিভূতির বাড়ির লোকেরা তাঁকে কল্যাণীর জওহরলাল নেহরু হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেই রাতেই তাঁর অস্ত্রোপচার হয়। কিন্তু সঙ্কট কাটেনি। যমে মানুষে লড়াই শুরু হয়।  মঙ্গলবার বিভূতি মারা যান। তাঁর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের পর বাড়ির লোকেদের হাতে তুলে দেয় পুলিশ। স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, প্রায়শই চুরি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেই চলেছে। পুলিশকে জানিয়েও কোনও ফল হচ্ছে না। আর এই কারণে এক নিরীহ মানুষকে প্রাণ দিতে হল। ভাটপাড়া থানার পুলিশ খুনের মামলা রুজু করেছে। দুষ্কৃতীদের সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। রাস্তার সিসি টিভি ফুটেজ  দেখে দুষ্কৃতীদের হদিশ পাওয়ার চেষ্টা চলছে। কল্যাণী রোড ঘটনাস্থল থেকে কাছে থাকায় দুষ্কৃতীরা সেই রোড ধরে পালানোর সুযোগ পেয়েছে, এমনটাই মনে করছে পুলিশ। 

জনপ্রিয়

Back To Top