আজকালের প্রতিবেদন: ইভটিজার, বেপরোয়া বাইক চালকদের ধরতে কলকাতায় অভিযান শুরু করল পুলিশ। শুক্রবার রাতভর অভিযানে ধরা পড়েছে ৭৪ জন। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ৫১টি মোটরবাইকও।
হায়দরাবাদ, উন্নাওয়ের ঘটনার পর আরও কড়া নজরদারি শুরু করেছে কলকাতা পুলিশ। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি পুলিশকে আরও সক্রিয় হতে নির্দেশ দিয়েছেন। নারী–নির্যাতনের ঘটনায় দ্রুত গ্রেপ্তার করে ৩ থেকে ১০ দিনের মধ্যে চার্জশিট দিতে হবে এবং অভিযুক্তদের বিচার শুরু করাতে হবে বলেও নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পুলিশ গাফিলতি করলে সরকার ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।  
শুক্রবার রাতে কলকাতার বিভিন্ন থানা এলাকায় নাকা চেকিং শুরু হয়। ছোট ছোট রাস্তাগুলিতেও পুলিশ টহলদারি বাড়ায়। বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশির সময় বেশ কয়েকজন ইভটিজারকে ধরে ফেলে কলকাতা পুলিশের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মহিলা বাহিনী ‘‌উইনার্স’‌। প্রতিটি দলে ছিলেন ৮ জন করে মহিলা পুলিশকর্মী। কিছু কিছু জায়গায় উইনার্সের দল মোটরবাইক নিয়ে তাড়া করে ইভটিজারদের ধরে। ছিলেন কলকাতা পুলিশের গুন্ডাদমন শাখার অফিসারেরা। মত্ত অবস্থায় বাইক চালানো, অভব্য আচরণের জন্য গ্রেপ্তার করা হয় বেশ কয়েকজনকে। এরকম ৭৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে কলকাতা পুলিশ জানিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলাও শুরু হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযানের পাশাপাশি স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলা হয় এবং তঁাদের সমস্ত সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়। এরকম অভিযান এবার থেকে চলবে বলে লালবাজার সূত্রে জানা গেছে। 
অভিযানে খুশি হয়েছেন কলকাতার বাসিন্দারা। সানিয়া সিদ্দিকি নামে এক গৃহবধূ বলেন, এই ধরনের অভিযানে আমরা খুবই খুশি। শহরের মহিলাদের নিরাপত্তা ও তঁাদের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে এই ধরনের অভিযান খুবই ফলপ্রসূ হয়। 
একই কথা শোনা গেছে কলেজ পড়ুয়া অর্চনা চ্যাটার্জির মুখে। কলকাতা পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, কলকাতায় আমরা অনেক নিরাপদে আছি। যার প্রমাণ পুলিশের এই ধরনের অভিযান।‌

জনপ্রিয়

Back To Top