আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌শনিবার থেকে শুরু হয়েছে কৌশিকী অমাবস্যা। তাই তারাপীঠে শুরু হয়েছে মা তারার বিশেষ পুজো। আর রবিবার মা তারার মন্দিরে নিজের হাতে পুজো দিলেন বীরভূমের তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। এদিন ভোর ৪টেয় পুজো শুরু হয় মন্দিরে। মাকে স্নান করিয়ে রাজবেশে সাজানো হয়। তারপর শুরু হয় বিশেষ পুজো। আজ মায়ের মহাভোগও হবে। তাই সকাল থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে তার জোর প্রস্তুতি। সকালে পোলাও, ভাজা, মাছ, বলির মাংস, মিষ্টি–সহ মহাভোগ, বিকেলে শীতল আরতির পর লুচি–সুজি–ফল দিয়ে হবে শীতল ভোগ। আর রাতে থাকবে খিচুড়ি–ভাজা।
এই বছর টানা দু’‌দিন খোলা রাখা হয়েছে তারাপীঠের মায়ের মন্দির। গতকাল সারারাতই খোলা ছিল মন্দিরের দরজা। সে সময় পুজো দিতে দেওয়া হয়নি ভক্তদের। অমাবস্যা লাগার পর থেকে তারাপীঠ মহাশ্মশানে শুরু হয় মহাযজ্ঞ। দেশের নানা প্রান্ত থেকে আসা তন্ত্র সাধকরা তন্ত্র আরাধনায় বসেন। রবিবার তারাপীঠে এসে মায়ের দর্শন করেন অনুব্রত মণ্ডল। মাকে লাল চোলি পরান তিনি৷ অঞ্জলিও দেন নিষ্ঠার সঙ্গে৷ পুজো শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌মাকে বলেছি ৪২টা করে দাও মা৷ মা বলেছেন ৪২–এ ৪২টাই হবে।’‌‌
তবে চড়াম চড়াম আওয়াজের প্রবক্তা অনুব্রতের যে রূপ এদিন দেখা গেল তা একেবারেই অচেনা। বেলা ১টা নাগাদ তিনি সদলবলে পুজো দিতে যান তারাপীঠে। মন্দিরে পূণ্যার্থীর সংখ্যা মাত্রাতিরিক্ত থাকায় তাঁকে ঢোকানো হয় ভিআইপি গেট দিয়ে। মন্দিরের প্রধান পুরোহিতের উপস্থিতিতে পুজো দেন অনুব্রত। তবে বিগ্রহের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি কোনও এক কারণে কাঁদতে শুরু করেন। যা দেখে উপস্থিত অন্যান্যরা হতবাক হয়ে যান। মন্দিরের গর্ভগৃহে প্রায় আধ ঘণ্টা থাকার পর বেরিয়ে আসেন তিনি। অনুব্রতর এই কান্নার বিষয়টি তখন তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয় তিনি কী প্রার্থনা করলেন মায়ের কাছে? তৃণমূলের বীরভূম সভাপতির সটান জবাব, ‘‌মানুষ যাতে মিথ্যে কম বলে মায়ের কাছে সেই প্রার্থনা করেছি। আর মাকে বলেছি ৪২টা করে দাও মা৷ মা বলেছেন ৪২–এ ৪২টাই হবে।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top